“বাংলাদেশ এবারের টুর্ণামেন্টে অন্যতম ফেভারিট একটি দল : সাকলাইন মুশতাক

এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে শ্রীলংকার বিপক্ষে ১৩৭ রানের বড় জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ দল। টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই লিটন কুমার এবং সাকিব আল হাসানকে হারিয়ে বিপদে পড়ে বাংলাদেশে দল। এরপর তামিম ইকবাল হাতের কবজিতে আঘাতে মাঠ ছাড়লে আরো বিপদে পড়ে বাংলাদেশে দল।

চতুর্থ উইকেট পার্টনারশিপে মোহাম্মদ মিঠুন কে সাথে নিয়ে ১৩২ রানের পার্টনারশিপ গড়েন মুশফিকুর রহিম। মোহাম্মদ মিঠুন ৬২ রানে আউট হলেও অন্য প্রান্ত থেকে একাই লড়াই করে গেছেন মুশফিকুর রহিম। মোহাম্মদ মিঠুনের আউটের পর মুশফিকুর রহিমকে সঙ্গ দিতে পারেননি অভিজ্ঞ মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ এবং মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত।

শেষের দিকে মেহেদি হাসান মিরাজ এবং মাশরাফি বিন মুর্তজাকে নিয়ে ছোট দুটি পার্টনারশিপ গড়েন নিজের ষষ্ঠ সেঞ্চুরি তুলে নেন মুশফিকুর রহিম। আর শেষ উইকেট পার্টনারশিপে তামিম ইকবাল কে সাথে নিয়ে ৩২ রান করে এশিয়া কাপের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ স্কোর ১৪৪ রান করে আউট হন মুশফিকুর রহিম।

মুশফিকুর রহিমের এই সাহসী ব্যাটিংয়ে মুগ্ধ হয়েছেন পাকিস্তানের সাবেক স্পিনার এবং বাংলাদেশ জাতীয় দলের সাবেক স্পিন কোচ সাকলাইন মুশতাক। পাকিস্থানে এক টিভি চ্যানেলের স্পোর্টস অনুষ্ঠানে গতকাল পাকিস্তান ম্যাচের অাগে সাকলাইন মুশতাক বলেন, “বাংলাদেশ এবারের টুর্ণামেন্টে অন্যতম ফেভারিট একটি দল।

বিগত কয়েক বছরে পারফর্মেন্স এই বাংলাদেশ দলকে এগিয়ে রাখবে। তাদের দলে অভিজ্ঞ কিছু ক্রিকেটার আছে যারা এক দশকেরও বেশি সময় ধরে বাংলাদেশ দলে একসাথে খেলছেন। অভিজ্ঞতায় মুশফিকুর রহিমকে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচে সেঞ্চুরি করতে সাহায্য করেছে”।

তবে তিনি প্রশংসায় ভাসিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের বোলারদেরকে। শুরুর দিকে মাশরাফি, মুস্তাফিজের চমৎকার বোলিংয়ে মুগ্ধ হয়েছেন তিনি। এ সময় তিনি আরো বলেন, “বাংলাদেশ পেস বোলিং অ্যাটাক এখন অনেক ভালো। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজের দারুণ বোলিং করেছিলেন মাশরাফিরা। যার ধারাবাহিকতা বজায় রেখেছে এশিয়া কাপে। বাংলাদেশের অাসল লড়াই হবে ভারত এবং পাকিস্তানের সাথে। সুপার ফোরের লড়াই দারুন হবে।

সূত্র : ইউটিউব