সবাইকে অবাক করে টাইগারদের নিয়ে যা বললেন ব্রেট লি

এশিয়া কাপের প্রথম ম্যাচে শ্রীলংকার বিপক্ষে ১৩৭ রানের বড় জয় তুলে নিয়েছে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল।এদিকে, তামিম ইনজুরি হয়ে মাঠের বাহিরে চলে যান। পরে আবারো মাঠে নামেন তামিম। ইনজুরির পরও এক হাতে ব্যাট করে বিশ্বকে তাক লাগালেন তামিম। একের পর এক আউটের মিছিলে রানের চাকা ঘুরতে পারলো না। মিঠুন আর মুশফিকের রানে বাংলাদেশের এগিয়ে যায়।

এদিন শ্রীলঙ্কা দলে ক্যাচ মিসের মহড়ায় ২০ রানের মধ্যেই জীবন পান মুশফিকুর রহিম এবং মোহাম্মদ মিঠুন। মুশফিকুর রহিম এবং মোহাম্মদ মিঠুনের ব্যাটের ১৩ ওভারে দলীয় ৫০ রান পর করে বাংলাদেশ। ৫২ বলে ফিফটি তুলে নেন মোহাম্মদ মিঠুন।

২০ ওভারের মধ্যেই ১০০ রান পূরণ করেন এই দুই ব্যাটসম্যান। অন্য প্রান্ত থেকে ৬৫ বলে ফিফটি তুলে নেন মুশফিকুর রহিম। এই দুজনের ১৩২ রানের পার্টনারশিপ ভাঙেন মালিঙ্গা। আর এরপর এই বিপদে পড়ে বাংলাদেশে দল। ৬৩ রান করে আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরে যান মোহাম্মদ মিঠুন।

বেশিক্ষণ স্থায়ী হতে পারেনি মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, এবং মোসাদ্দেক হোসেন। দলীয় ১৩৬ রানের মাথায় এক রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন তিনি। লাথিস মালিঙ্গা চতুর্থ শিকার হয়ে ব্যক্তিগত ১ রান করে আউট হয় মোসাদ্দেক হোসেন। পরে ব্যাটিংয়ে মুশফিকুর রহিম কিছুটা সঙ্গ দিয়ে প্যাভেলিয়নের প্রধান মেহেদি হাসান মিরাজ।

এদিন মুশফিকুর রহিমকে সঙ্গ দিতে পারেননি মাশরাফি বিন মর্তুজা ও। ১৯৫ রানের মাথায় ১১ রান করে প্যাভিলিয়নে ফেরেন বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক। এটিন যেন একাই লড়ে গেছেন মুশফিকুর রহিম। এশিয়া কাপের নিজের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন ১২৩ বলে। ১০ জানে মুস্তাফিজুর রহমান আউট হলে ইনজুরি নিয়েই মাঠে নামেন তামিম ইকবাল। অন্য প্রান্ত থেকে তখনই ব্যাটিং তাণ্ডব শুরু করেন মুশফিকুর রহিম। ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস খেলেন মুশফিকুর রহিম।

ম্যাচ শেষে স্টার স্পোর্টস এর ‘ডাগআউট’ অনুষ্ঠানে ব্রেট লি বলেন, “বাংলাদেশ অসাধারন ক্রিকেট খেলেছেন। বাংলাদেশ এখন একটি পরিনিত দল। ব্যাটিং বোলিং ফিল্ডিং তিন বিভাগেই তারা চমৎকার করছে। মুশফিকুর রহিমের ইনিংসটা সত্যি অসাধারণ।

সঠিক পরিকল্পনায় ব্যাটিং করেছেন তিনি। এছাড়াও বাংলাদেশের পেস বোলাররা শুরুতেই উইকেট তুলে নিয়ে শ্রীলঙ্কাকে চাপে ফেলে দিয়েছে। মুস্তাফিজ অসাধারণ। পুরনো ছন্দে ফিরেছেন তিনি। সুপার ফোর রাউন্ডে দারুণ লড়াই হবে বাংলাদেশের”

দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে গতরাত থেকে একটাই আলোচনার বিষয়, এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তামিম ইকবালের দ্বিতীয়াবারের মতো ব্যাট হাতে মাঠে নামা। আঙুলে চোট নিয়েই খেলতে নেমেছিলেন তামিম।

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে সুরঙ্গা লাকমালের বাউন্সার এসে লাগে সেই আঙুলে। আঘাতের ওপর আঘাত! তারপরও মাঠে তামিম! কীভাবে?তামিমের মাঠে ফেরার এই গল্প জানতে গত রাত থেকেই উৎসুক হয়ে আছেন দর্শক-ক্রিকেটপ্রেমীরা।

গণমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাতকারে সেই কৌতুহল মেটানোর চেষ্টা করেছেন দেশসেরা ওপেনার। মুস্তাফিজ নবম ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়ার সময় বাংলাদেশের রান ২২৯। আরও কিছু রান দরকার ছিল। মুস্তাফিজ মাঠ ছাড়লেও অপরাজিত মুশফিক মাঠ ছাড়ছেন না দেখে অবাক সবাই। সেই বিস্ময় আরও বড় আকার ধারণ করল যখন ব্যাট হাতে মাঠে নামলেন তামিম।