শেষ বলে ম্যাচে হেরে মাশরাফির প্রশংসায় যা বললেন আফগান অধিনায়ক

অসাধারণ! দুর্দান্ত! আর কী বলা যায় এই জয়কে? স্নায়ুযুদ্ধের এই খেলায় বাংলাদেশ যে জিতবে, তা কল্পনা করা কঠিন ছিল যে কারো পক্ষে। শেষ ওভারে মাত্র ৮ রান দরকার ছিল আফগানদের। হাতে উইকেট ছিল ৪টি।

কিন্তু সেই সহজ কাজটাই অসাধ্য করে দিলেন মোস্তাফিজ। অসাধারণ শেষ ওভারে বাংলাদেশকে এনে দিলেন ৩ রানের এক নান্দনিক জয়।এশিয়া কাপের টানটান উত্তেজনার এ ম্যাচে আফগানিস্তানকে হারানেরা মধ্য দিয়ে ফাইনালের আশাও বাঁচিয়ে রাখল বাংলাদেশ।

বাংলাদেশের দেয়া ২৫০ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ম্যাচটা সহজ হয়নি আফগানদের। তবে লোয়ার মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানদের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে শেষ পর্যন্ত ভালো খেলতে থাকে তারা । তবে মোস্তাফিজের দুর্দান্ত বোলিংয়ে অসাধারণ জয় পায় টাইগাররা। সর্বোচ্চ ৭১ রান করেন হাশমতউল্রাহ। বাংলাদেশের পক্ষে ৬২ রানে ২ উইকেট লাভ করেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা।

ম্যাচ শেষে উচ্ছাশিত মাশরাফি বলেন, ‘আসলে যেভাবে আমরা জিতেছি তার কৃতিত্বটা অবশ্যই মোস্তাফিজের। সে ছিল জাদুকর। তার নিজস্ব জাদুতে বের করে এনেছে আমাদের জয়। সে যেভাবে বল করেছে তা এক কথায় অসাধারণ।’

পাশপাশি বললেন সাকিব আল হাসানের কথাও, ‘সাকিব যেভাবে শেষ তিন ওভারে বল করেছে তা আমাদের জন্য ইতিবাচক ছিল। আর ও যে উইকেটটা নিয়েছিল তা শেষ দিকে আমাদের জন্য ভাইটাল হয়ে দাঁড়ায়।’ দলের ব্যাটসম্যানদের প্রতিও জানালেন কৃতজ্ঞতা, মাহমুদুল্লাহ ও ইমরুলের প্রশংসা করতেই হবে। তারা চাপের মুখেও দলকে ভালো স্কোরের দিকে নিয়ে গেছে।

ম্যাচ শেষে মুস্তাফিজকে প্রশংসায় ভাসিয়েছে আফগান অধিনায়কও। তিনি বলেণ, ‘শেষ ওভারে ৮ রানে নির্ভর করে বল করা খুবই কঠিন। কিন্তু মুস্তাফিজ তার বোলিং ভ্যারাইটি ব্যবহার করে তাই করে দেখিয়েছেন।

এসময় তিনি টাইগার অধিনায়ক মাশরাফির প্রশংসা করে বলেন, ‘শেষ সময়ে আমাদের ওভার প্রতি ১০ রান করে প্রয়োজন ছিল যেটা খুব কঠিন হয়ে দাড়িয়েছিল। মোর্তাজা তার বোলারদের খুবই স্মার্টলি ব্যবহার করেছেন এবং তার স্ট্রাইক বোলারদের ঘুড়িয়ে ফিরিয়ে দারুন ভাবে ব্যবহার করেছেন। সাকিব এবং মুস্তাফিজ তাদের সম্পূর্ন ১০ ওভার শেষ করেনি। মাশরাফি তাদেরকে সঠিক সময়গুলোতে সঠিক ভাবে ব্যবহার করেছেন।’