মোস্তাফিজ তো ঐ মাপেরই বোলার : তাসকিন

জাদু দেখালেন মোস্তাফিজ? হ্যা এটা তো জাদুই। জয়ের জন্য আফগানিস্তানের প্রয়োজন ৮ রান, হাতে ৪ উইকেট। উইকেটে তখন ও অাফগানিস্থানের দুই দাপুটে ব্যাটসম্যান সামিউল্লাহ শেনওয়ারি ও রশিদ খান। কেউই হয়তো ভাবেনি ম্যাচটি আফগানদের মুঠো গলে বেড়িয়ে যাবে!

ফিজের এমন বিস্ময় জাগানিয়া বোলিংয়ে অভিভূত তারই সতীর্থ তাসকিন আহমেদ। তিনি মনে করেন, একই পরিস্থিতি দশবার এলে আটবারই সফল হবে মোস্তাফিজ।

‘মনে-প্রাণে বিশ্বাস করছিলাম মোস্তাফিজ পারবে। কেননা ব্যাটসম্যান ওই সময় চাইবে মারতে, আর মোস্তাফিজের কাটার এমন, যদি কেউ মারার জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ থাকে তাহলে খেলা খুব কঠিন। আমি মনে করি মোস্তাফিজ ওই মাপেরই একজন বোলার। ওকে আপনি ওরকম দশটা সুযোগ বা পরিস্থিতি দেন, আটটাতেই জিতিয়ে দেবে।’

সোমবার (২৪ সেপ্টেম্বর) মিরপুর ক্রিকেট একাডেমি মাঠে জাতীয় ক্রিকেট লিগে (এনসিএল) ঢাকা মেট্রোর অনুশীলনের ফাঁকে সংবাদ মাধ্যমকে একথা বলেন।

ঢাকা মেট্রোর আরেক ক্রিকেটার মোহাম্মদ আশরাফুলেরও ছিল মোস্তাফিজের ওপর। আফগান বধের মোক্ষম হাতিয়ার হয়ে ওঠায় তার কণ্ঠেও ঝড়লো ফিজ বন্দনা। বলেন, ‘আস্থা ছিল। আমি পুরো খেলাটাই দেখেছি। ব্রেট লি ধারাভাষ্য দিচ্ছিল, তারও বিশ্বাস ছিল মোস্তাফিজ ৮ রান ডিফেন্ড করতে পারবে। আমারও আস্থা ছিল। তবে সহজ হবে না জানতাম। কারণ আমরা এ ধরনের পরিস্থিতিতে ২-৩ বার সফল হতে পারিনি। অসাধারণ বোলিং করেছে মোস্তাফিজ। ওর কাছে এমন কিছুই আশা করে দেশের মানুষ, মোস্তাফিজ ভিন্ন কিছু করবে।’

স্পিন বিষে ভরা আফগানদের হারানোর পর নিজেদের ফিরে পাওয়া টাইগারদের ফাইনালের মিশনে বাধা এখন শুধুই পাকিস্তান। বুধবার সুপার ফোরের তৃতীয় ম্যাচে তাদের হারাতে পারলেই ফাইনালে পৌঁছে যাবে টাইগাররা। তবে সেই পথটিও খুব একটা বন্ধুর দেখছেন না আশরাফুল।

‘বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের আত্মবিশ্বাস পাওয়া দরকার ছিল। শেষ ম্যাচের জয়টা আত্মবিশ্বাস যোগাবে। আমি মনে করি পাকিস্তানের বিপক্ষে জেতা সম্ভব। বোলিং ইউনিট খুব ভালো আছে। যদি ব্যাটসম্যানরা একটু স্মার্ট ক্রিকেট খেলতে পারে তাহলে বাংলাদেশের খুব ভালো সম্ভাবনা থাকবে।’