মাশরাফির যে `মন্ত্র’ উজ্জীবিত করে পুরো দলকে !

১২ রানে তিন উইকেট পড়ে যাওয়ার পর বাংলাদেশকে টেনে তোলেন মুশফিকুর রহিম ও মোহম্মদ মিঠুন। দু-দলের মাস্ট উইন ম্যাচে বাংলাদেশ দাঁতে দাঁত চেপে লড়াই চালিয়ে গেল। শেষমেশ এল কাঙ্খিত জয়। পাকিস্তানকে ধরাশায়ী করে জিতল বাংলাদেশ। এমনি ভাবে শেষ পর্যন্ত লড়াই চালিয়ে যাওয়ার আত্ববিশ্বাস দলের সকলের মধ্যে দিয়ে দিয়েছেন নেতা মাশরাফি।

পাকিস্তানের বিপক্ষে বাংলাদেশের দুর্দান্ত জয়ের নায়ক মুশফিকুর রহীম ম্যাচ শেষে জানালেন এমনটাই।১২ রান টপ অর্ডারের তিন ব্যাটসম্যান হারিয়ে ধুঁকতে ধাকা বাংলাদেশকে শ্রীলঙ্কার পর দ্বিতীয় বারের মতো দলকে টেনে তোলেন মুশফিকুর রহিম ও মোহাম্মদ মিঠুন। ব্যক্তিগত ৬০ রানের মাথায় মিঠুন আউট হলে ১৪৪ রানের জুটির অবসান ঘটে।

যা বাংলাদেশকে বড় সংগ্রহের ভীত গড়ে দেয়। এরপর সেঞ্চুরি থেকে ১ রান দূরে মুশফিক আউট হলেও লড়াই করার মতো ২৩৯ রানে পুঁজি পেয়ে যায় বাংলাদেশ। এরপর মশারফিদের দূর্দান্ত বোলিং ও ফিল্ডিংয়ে ৩৭ রানের জয় এশিয়া কাপের ফাইনালে নিয়ে পৌঁছে দেয়।

বরাবর দলের বিপর্যয়ে দলের ত্রাতা হয়ে দাঁড়ানোর আর্ববিশ্বাসটা কোথার থেকে পেলেন ম্যাচে শেষে এমন প্রশ্নের ছিল সাংবাদিকদের। এ সময় সাংবাদিকদের মুশফিক জানান মাশরাফির এক একটি বাণী সতীর্থদের জন্য উজ্জীবনী মন্ত্র।

তিনি বলেন, ‘মাশরাফি ভাই আমাদের একটা কথা বলেন, আমরাও বলি : যুদ্ধের সময় পেছনে তাকানো যায় না। যদি আপনি ভাবেন আমি যুদ্ধে গিয়ে নিরাপদে থাকার চেষ্টা করব, তবে কাজ হবে না। হয় মারো, না হয় মরো-যে কোনো একটা করো। এটা আসলে বড় প্রেরণা।

কারণ আপনি যখন যুদ্ধে থাকবেন, তখন আপনার অধিনায়ক কে, সেটি দেখবেন না, কে সেখানে আছে বা নেই তা-ও দেখবেন না।’