এবার ধোনিকে অাউট করলেন টাইগার মুস্তাফিজ

এশিয়া কাপের ফাইনালে টস হেরে আগে ব্যাটিং করেছে বাংলাদেশ। ৪৮.৩ বল খেলে অলউইকেট হারিয়ে ২২২ রান সংগ্রহ করেছে বাংলাদেশ। ফলে ভারতকে ২২৩ রানের টার্গেট দিল বাংলাদেশ।

জবাবে এখন ব্যাটিং করছে ভারত। শুরুতেই শিখর দেওয়ানকে আউট করে নাজমুল ইসলাম অপু। পরে রায়ডুকে আউট করেন টাইগার মাশরাফী। ১৬তম ওভারে এসে রোহিত শর্মাকে আউট করেন রুবেল। পরে কার্তিককে আউট করেন মাহমুদুল্লাহ। ৩৭তম ওভারে এসে ধোনিকে আউট করেন টাইগার মুস্তাফিজ। সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ভারতের স্কোর: ১৬০/৫ ওভার: ৩৬।

এদিকে, অাজ ১ পরিবর্তন নিয়ে মাঠে নামে বাংলাদেশ। মুমিনুল হকের জায়গায় একাদশে ঢুকেছেন নাজমুল ইসলাম অপু। ভারতের শক্তিশালী ব্যাটিং লাইনআপের কথা বিবেচনা করে একাদশে রাখা হয়েছে পাঁচ বিশেষজ্ঞ বোলার।

শুরুতেই আজকের ব্যাটিংয়ে ওপেনিংয়ে নামেন লিটন-মেহেদি হাসান মিরাজ। শুরুতেই দুর্দান্ত ব্যাটিং শুরু করে ওপেনিং জুটি লিটন ও মিরাজ। চার-ছক্কাসহ দারুণ রান রেটে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। দুর্দান্ত হাফসেঞ্চুরি করলেন লিটন দাস।

পরে ৫৯ বলে ৩২ রান করে আউট হলেন মিরাজ। পরে ১২ বলে ২ রান করে আউট হন ইমরুলও। ছক্কা মারতে গিয়ে ক্যাচে আউট হন মুশফিক। পরে রান আউট হয়ে সাজঘরে ফিরেন মিঠুনও। মিডল অর্ডার থেকে একের পর এক উইকেট পতনে বাংলাদেশের রানের চাকা বন্ধ হয়ে যায়। সর্বশেষ সৌম্যের ব্যাট থেকে কিছুটা রান পায় বাংলাদেশ। ৪৫ বলে ৩৩ রান করেন সৌম্য সরকার।

এদিকে, রেকর্ড গড়ে ১১৭ বলে ১২১ রান করেন লিটন কুমার দাস। এটাই লিটনের প্রথম সেঞ্চুরি। ৫৯ বলে ৩২ করেন মেহেদি হাসান মিরাজ।

বাংলাদেশ একাদশ: ইমরুল কায়েস, লিটন দাস, মোহাম্মদ মিঠুন, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, সৌম্য সরকার, নাজমুল ইসলাম অপু, রুবেল হোসেন, মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা এবং মোস্তাফিজুর রহমান।

এদিকে, বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচে বিতর্ক শুরু ২০১৫ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে। এরপর নিদাহাস ট্রফির ফাইনালেও বাংলাদেশকে হজম করতে হয়েছিল বিতর্কিত সিদ্ধান্ত।

আজ আবারও তেমন কিছুই হজম করতে হচ্ছে এশিয়া কাপের ফাইনালে। অস্ট্রেলিয়ান এই আম্পায়ার সিদ্ধান্ত জানাতে প্রায় তিন মিনিটের মতো সময় নেয়। অবশেষে জায়ান্ট স্ক্রিনে লাল রং জ্বলে আউটের ঘোষণা দেয়া হয়।