রোনালদোর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ

কখনো গোল দিয়ে আবার কখনো গোল না করে হর হামেশাই খবরের শিরোনাম হন পর্তুগিজ সুপারস্টার ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। তবে এবার শিরোনামে এসেছেন ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্ত হয়ে।

ক্যাথরিন মায়োরগা নামে যুক্তরাষ্ট্রের ৩৪ বছর বয়সী এক নারী অভিযোগ করেন, পর্তুগিজ ফুটবল খেলোয়াড় ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো তাকে লাস ভেগাসের একটি হোটেলে ধর্ষণ করেছিলেন। জার্মানভিত্তিক ম্যাগাজিন ‘দার স্পিজেল’ এ খবর প্রকাশ করে।

ম্যাগাজিনটিতে বলা হয়েছে, রোনালদো ওই নারীকে ৩ লাখ ৭৫ হাজার ইউএস ডলার দিয়েছিলেন এ ঘটনায় মুখ না খোলার জন্য। তবে ফিফার পাঁচবারের বর্ষসেরা এই খেলোয়াড় সব অভিযোগ অস্বীকার করেন। তিনি জানান, ওই নারীর সম্মতিতেই শারীরিক সম্পর্ক হয়েছিল।

রোনালদো অভিযোগ অস্বীকারের পর, ক্যাথরিন মায়োরগার আইনজীবী তার ক্লায়েন্টকে চুপ থাকার জন্য রোনালদোর দেওয়া অর্থ নিয়েও প্রশ্ন তুলছেন। তবে দার স্পিজেল বলছে, রোনালদোর অ্যাকাউন্টের বিভিন্ন তথ্য নিয়েই ক্যাথরিন মায়োরগার আইনজীবী মামলা করেছেন।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে রোনালদোর আইনজীবী ক্রিস্টিয়ান শ্যার্টজ বলেন, ‘এটা একটা অগ্রহণযোগ্য রিপোর্ট।‘ তিনি এই পত্রিকার বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থা নেবেন বলেও জানিয়েছেন।

ধর্ষণের অভিযোগকারী ক্যাথরিন মায়োরগা জানান, এক সন্ধ্যায় লাস ভেগাসে পার্টি করে সময় কাটানোর পর রোনালদো তাকে ধর্ষণ করেন। লাস ভেগাসে তিনি দুলাভাই-খালাতো ভাই বোনদের সঙ্গে ছুটি কাটাচ্ছিলেন।