দেশে ফিরেই মুখ খুললেন স্টিভ রোডস

এশিয়া কাপের ফাইনালে পরাশক্তি ভারত এবং অঘোষিত সেমিফাইনালে শক্তিশালী পাকিস্তানের বিপক্ষে হৃদয়জয়ী খেলা উপহার দিয়ে দেশে ফিরেছেন লাল সবুজের ক্রি‌কে‌টের দিনবদলের দলপতি মাশরাফি বিন মুর্তজা ও তার দল।

শনিবার রাত ১১টা ১৫ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করেন এশিয়া কাপে তিনবারের ফাইনালিস্টরা।

এদিকে দেশে ফিরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে লিটন দাসের বিতর্কিত আউট নিয়ে কথা বলেছেন বাংলাদেশ কোচ স্টিভ রোডস।

রোডস বলেন, লিটনের এই আউট দেওয়াতে আমি হতাশ। তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আপনাকে যেকোন ধরণের প্রতিকূলতাকে বা খারাপ কিছুকে জয় করেই সামনে এগোতে হবে।

তিনি আরো বলেন, ক্রিকেটে এমন হতেই পারে। কিন্তু আমাদের এই সব প্রতিকূলতা অতিক্রম করার ক্ষমতা অর্জন করতে হবে।

বারবার ফাইনালে হেরে যাওয়াকে মানসিক বাধা মনে করছেন না বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের হেড কোচ স্টিভ রোডস। ভারতের বিপক্ষে বোলাররা অসাধারণ খেলেছে মন্তব্য করে তিনি আশা প্রকাশ করেন শিগগিরই বড় শিরোপা জিতবে বাংলাদেশ।

এদিকে, ফাইনালের ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে ভবিষ্যতে বড় মঞ্চে আরো ভালো ক্রিকেট খেলার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন অলরাউন্ডার মেহেদী হাসান মিরাজ। দুবাই থেকে দেশে রওয়ানা হবার আগে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তারা।

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের হেড কোচ স্টিভ রোডস বলেন, দেখুন, মিডল অর্ডারে আমাদের বড় ভরসা ছিলো। কিন্তু ভারতের বিপক্ষে ব্যর্থ হয়েছে মিডল অর্ডার। যদিও লিটন ছন্দে ফিরেছে। আমাদের বোলাররা অসাধারণ খেলেছে। আমি আশাবাদী হতে চাই। নিশ্চয় দেশের মানুষও আত্মবিশ্বাস হারাবে না। ছেলেদের নিয়ে আমি গর্বিত।

বাংলাদেশে দলের অফ স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজ বলেন, খেলার আগের রাতে যখন খেতে গিয়েছিলাম তখন আমাকে ঢেকে নিয়ে বলতেছে, ওপেন করতে পারবি। তখন আমি বলি, আপনি যদি বলেন, টিমের প্রয়োজনে তাহলে করতে পারবো। পরে বললো সাহস নিয়ে ব্যাটিং করবি।

মেরাজ আরো বলেন, মাশরাফি ভাই আমাকে বলেছিলেন, প্রথম দশ ওভার ক্রিজে থাকতে হবে। কিন্তু যাতে উইকেট ধরে রাখা যায়। এবং সিঙ্গেল রুটেট করে খেলতে হবে। আমি রুটেট করে খেলেছি, অপরদিকে লিটন দাস আক্রমণে ছিল। এতে আমরা বেশ সফল হয়েছি। উইকেট হাতে থাকলে পরে পার্টনার সহজে খেলতে পারে। যদি আমরা ভাল খেলি, তাহলে টিমের রেজাল্ট সহজে চলে আসবে।

এছাড়াও দলে আমাদের সকলের ছোট ছোট কন্ট্রিবিশন ছিল। আফগানিস্তানের বিপক্ষে শেষ ওভার মোস্তাফিজ জয় এনে দিয়েছে। আমি পাকিস্তানের বিপক্ষে দলের প্রয়োজনে ব্রেক-তো এনে দিয়েছি।