সাহস থাকলে আমার সামনে আসুক, তনুশ্রীকে রাখি

বলিউডের খ্যাতনামা অভিনেতা নানা পাটেকরের বিরুদ্ধে কয়েকদিন আগে যৌন হেনস্তার অভিযোগ করেছেন ‘আশিক বানায়া আপনে’ খ্যাত নায়িকা তনুশ্রী দত্ত। বর্তমানে এই ঘটনা নিয়েই সরগরম গোটা বলিউড। তবে তনুশ্রীর এই অভিযোগে কার্যত দ্বিধাবিভক্ত বিশ্বের অন্যতম বড় এই ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি।

মি টু আন্দোলনে সরব হয়ে এ ঘটনায় তনুশ্রীর পাশে দাঁড়িয়েছেন ফারহান আখতার, প্রিয়াংকা চোপড়া ও অভিনেতা অক্ষয় কুমারের স্ত্রীর টুইঙ্কেল খান্নার মতো তারকারা। আরও আছেন পরিণীতি চোপড়া, সোনম কাপুর, কঙ্কনা সেনশর্মা, অনুরাগ কাশ্যপ, রিচা চাড্ডা ও কুনাল কাপুর প্রমুখ।

তেমনি অভিযুক্ত নানা পাটেকরের সমর্থনে দাঁড়াতে দেখা গেছে পরিচালক মেহুল কুমার ও নৃত্য পরিচালক গণেশ আচার্যকে। সেই তালিকায় এবার যোগ হল বলিউডের বিতর্কিত অভিনেত্রী রাখি সাওয়ান্তের নাম। তনুশ্রীকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে শনিবার তিনি রীতিমতো একটি সাংবাদিক বৈঠক করে ফেলেছেন।

তনুশ্রীকে আক্রমণ করে সাংবাদিক বৈঠকে রাখি বলেন, ‘গত দশ বছর কি ও কোমায় ছিল? এখন এসেছে নানা পাটেকরের মতো একজন প্রবীণ অভিনেতার বিরুদ্ধে কুৎসা রটাতে। এসব কিছুই না। যেহেতু তনুশ্রী ভালো ইংরাজি বলতে পারে, তাই সংবাদমাধ্যম ওকে অযথা গুরুত্ব দিচ্ছে। সাহস থাকে তো ও আমার সামনে আসুক।’

সম্প্রতি ভারতীয় টেলিভিশন ‘নিউজ১৮’-কে দেয়া সাক্ষাতকারে অভিনেত্রী তনুশ্রী দত্ত অভিযোগ করেন, ২০০৯ সালে মুক্তি পাওয়া ‘হর্ন ওকে প্লিজেস’ ছবির শুটিংয়ের সময় সেটের মধ্যেই অভিনেতা নানা পাটেকর তাকে হেনস্থা করেন। এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে রেগে গিয়ে পরে তনুশ্রীর বিরুদ্ধে মামলা করার হুমকি দেন নানা।

এদিকে অভিনেতা নানার বিরুদ্ধে অভিযোগের বিতর্ক শেষ না হতেই নতুন করে এক পরিচালকের বিরুদ্ধেও যৌন হেনস্তার অভিযোগ করেছেন তনুশ্রী। জানালেন, ২০০৫ সালে ‘চকলেট’ ছবির শুটিংয়ের সময় পরিচালক বিবেক অগ্নিহোত্রী তাকে জামা খুলে সহ-অভিনেতা সুনীল শেঠি ও ইরফান খানের সামনে নাচতে বলেছিলেন।

তনুশ্রী বলেন, সে সময় পরিচালকের ওই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেন অভিনেতা ইরফান খান ও সুনীল শেঠি। ইরফান খান রেগে গিয়ে চিৎকার করে বলেন, ‘কেন তনুশ্রীকে আমাদের সামনে এভাবে নাচতে হবে? আমরা সবাই জানি, শুটিংয়ে কাকে কী করতে হবে। তাই এ নিয়ে অতিরিক্ত কথা বলার প্রয়োজন নেই।’ তনুশ্রী জানান, ওই সময় পরিচালকের ওপর ক্ষেপে যান সুনীল শেঠিও।

এখানেই শেষ নয়, ডিএনএ-কে দেয়া সাক্ষাৎকারে তনুশ্রী যৌন হেনস্তার আরেকটি অভিযোগ করেন পরিচালক প্রেমাংশু রায়ের বিরুদ্ধে। নায়িকা বলেন, ২০১৩ সালে তিনি প্রেমাংশু রায়ের ছবি ‘গন্ধ’তে অভিনয়ের জন্য অডিশন দিতে গিয়েছিলেন। তখন তার বয়স ছিল ২০ বছর। অডিশনের পর তাকে আরেকটি কর্মশালার জন্য ডাকা হয়।

তনুশ্রীর অভিযোগ, কর্মশালার মাঝেই তাকে যৌন হেনস্তা করা হয়। তাকে দিয়ে জোর করে একাধিক ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় করানো হয়। তখন পরিচালক হুমকি দেন, ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় না করলে তাকে ছবি থেকে বাদ দেয়া হবে। ওই সময় তাকে নগ্নভাবে ক্যামেরার সামনে দাঁড়াতে বাধ্য করা হয়। তখন ক্যারিয়ারের কথা ভেবে নাকি এ ব্যাপারে কিছু বলেননি তিনি।

পরিচালক প্রেমাংশু রায় নাকি এরপরও তনুশ্রী দত্তের ওপর অত্যাচার অব্যাহত রাখেন। তাই পরে বাধ্য হয়ে ২০১৬ সালে পর্ণশ্রী থানায় তিনি অভিযোগ দায়ের করেন। পরে মামলাটি পর্ণশ্রী থানা থেকে পার্ক স্ট্রিট থানায় হস্তান্তর করা হয়। সেই মামলায় বর্তমানে জামিনে রয়েছেন পরিচালক প্রেমাংশু রায়।

তথ্যসূত্র: ঢাকাটাইমস