চোট নিয়েই সিপিএল-এশিয়া কাপ খেলেছেন মাহমুদউল্লাহ

সাকিবের চোটটা বেশ গুরুতর। আর এই চোটের অস্ত্রপাচারের পর তাকে তিন মাসের মতো মাঠের বাইরে থাকতে হচ্ছে। এদিকে টেস্ট ও টি-টোয়েন্টির অধিনায়কও তিনি।

একে তো তার মাঠের বাইরে থাকা, তার ওপর সামনের মাঠেই ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ে ও উইন্ডিজের বিপক্ষে সিরিজ খেলবে বাংলাদেশ। অধিনায়ক সাকিবের অনুপস্থিতিতে দায়িত্বটা এসে বর্তাতে পারে সহ-অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের ওপর।

মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও অধিনায়কত্ব করতে প্রস্তুত আছেন। তিনি বলেন, ‘অধিনায়কত্ব সব সময়ই পছন্দ করি। কাজটা খুবই চ্যালেঞ্জিং। খুবই সম্মানের কাজ। এই চ্যালেঞ্জ নিতে উন্মুখ থাকি। যদি এ ধরনের সুযোগ আসে আমি তৈরি।’

তবে এ ক্ষেত্রে একটা সমস্যাও আছে। দলের অনেক খেলোয়াড়ের মতো মাহমুদউল্লাহও চোটে জর্জরিত। গত জুলাইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে পিঠে চোট পেয়েছিলেন। সেটি নিয়েই খেলেছেন সিপিএল, এশিয়া কাপ।

তবে এবার চোট কাটিয়ে ওঠার ব্যাপারে আশাবাদী মাহমুদউল্লাহ, ‘চোট থাকবে। এগুলো নিয়ে খেলতে হবে। খেলতে খেলতে হয়তো অবস্থা শোচনীয় হয়েছে। ব্যথাটা পাঁজরের দিকেও এসেছে। এই মুহূর্তে কিছুটা ভালো আছি। কিছুদিনের বিশ্রামে আছি। আশা করি নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই ফিরতে পারব।’