ব্যালন ডি’অরে মেসির ভোট উধাও!

ফুটবলের জাদুকর লিওলেন মেসি। বিশ্বজুড়ে তার কোটি কোটি ভক্ত। প্রিয় এই ফুটবলারের হাতে ব্যালন ডি’অর তুলে দিতে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল তারা। যার কারণে বিপদে পড়ে যাচ্ছিল আয়োজক ফ্রান্স ফুটবল কর্তৃপক্ষ। কারণ এবারের ব্যালন ডি’অরের দৌড়ে ফেবারিট ছিলেন না এই আর্জেন্টাইন সুপারস্টার। ভক্তরা কী এর ধার ধারেন? তাই অনলাইনে ভোট দেয়ার সুযোগ পেতেই বানের মতো ভোট পড়তে থাকে, যা দেখে হতচকিয়ে যায় কর্তৃপক্ষ। ভোটদানের প্রক্রিয়াটিই বাদ দিয়ে দেয় তারা।

এবারের ব্যালন ডি’অরের জন্য প্রাথমিকভাবে ৩০ জনকে বাছাই করে ফ্রান্সের বিখ্যাত ফুটবল সাময়িকী ফ্রান্স ফুটবল। গোপন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে তারা বিজয়ী করে থাকে। পাঠকদের ভোট তাতে কোনো মানদণ্ড নয়। কিন্তু এবার কি মনে করে যেন পাঠকদের পছন্দ দেখতে চায় তারা।

আর তাই অনলাইন ভোটের ব্যবস্থা করেছিল তারা। ফলাফল ভোটের বন্যা। স্বল্প সময়ের মধ্যেই সাত লাখ চার হাজার ৩৯৬ জন পাঠক ভোট দিয়ে ফেলেন। যার ৪৮ শতাংশ ভোটই পড়ে মেসির ঝুলিতে। আর ৩১ শতাংশ মোহাম্মদ সালাহর পক্ষে। আট শতাংশ নিয়ে তৃতীয় স্থানে ছিলেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।

অথচ ব্যালন ডি’অরের দৌড়ে সবচেয়ে ফেবারিট উয়েফা এবং ফিফা পুরস্কারজয়ী লুকা মডরিচকে হিসেবেই আনেনি ভক্তরা।

এক পর্যায়ে মেসির পক্ষে এতোটাই ভোট পড়তে থাকে যে বিপদে পড়ে যায় আয়োজক কর্তৃপক্ষ। যদি এতো অল্প সময়েই আর্জেন্টাইন সুপারস্টার এতো ভোট পেয়ে যান, তাহলে বিতর্কের মুখোমুখি হতে হবে তাদের। কারণ এই প্রক্রিয়ার কোনো প্রভাব তো ফলাফলে পড়বে না। শুধু মাত্র পাঠকদের পছন্দ জানাই ছিল তাদের উদ্দেশ্য। তাই তড়িঘড়ি করে ভোটদান প্রক্রিয়া বন্ধ করে দেয় তারা। পরে অবশ্য পাঠকদের রোষানলে পড়তে হয়েছে তাদের। তাতে কান দেয়নি কর্তৃপক্ষ, প্রক্রিয়া বন্ধ করে হাফ ছেড়ে বেঁচেছে তারা।