পদ্মা সেতুর নাম শেখ হাসিনা সেতু না হওয়ায় কষ্ট পেয়েছি : কাদের

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বড় আক্ষেপ নিয়ে এখানে আমি দাঁড়িয়েছি। এ এলাকার অনেক সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ অনেকেই দাবি করছেন, এই সেতুর নাম হোক শেখ হাসিনা পদ্মা সেতু।

আমি নিজেও একান্তভাবে চেয়েছি এ সেতুর নাম পদ্মা সেতু হোক। কিন্তু এখানে এসে যখন দেখি পদ্মা সেতু নামের পাশে শেখ হাসিনা নেই, তখন আমার মনে আঘাত লেগেছে। পদ্মা সেতুর নাম শেখ হাসিনা সেতু না হওয়ায় আমি খুব কষ্ট পেয়েছি।

আজ রোববার মুন্সিগঞ্জের মাওয়ায় পদ্মা সেতুর নামফলক উন্মোচন ও কয়েকটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন শেষে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক সুধী সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, চাঁদপুর-মাদারীপুরসহ আশপাশের সব এলাকার মানুষের দাবি ছিল শেখ হাসিনার নামে এ সেতু হবে। কারণ, পদ্মা সেতুর একমাত্র কর্তৃত্ব শুধু শেখ হাসিনার। এ সেতু শুধুমাত্র তার নেতৃত্বে হয়েছে।

সেতুমন্ত্রী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমরা চাই এ সেতুর নাম আপনার নামেই হোক। একপর্যায়ে সাধারণ মানুষদের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন রেখে তিনি বলেন, আপনারা কি এ দাবির সঙ্গে একমত? তখস সবাই উচ্চস্বরে হ্যাঁ হ্যাঁ বলে সমর্থন জানান।

সেতুমন্ত্রী বলেন, আমি প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেছিলাম, কিন্তু তিনি বললেন, ‘এই পদ্মা সেতুর জন্য আমি অপমানিত হয়েছি। আমার দল অপমানিত হয়েছে। তাই এই সেতুর নামের পাশে আমি আমার ও আমার পরিবারের নাম জড়াবো না।’

তিনি আরও বলেন, এই সেতুর জন্য অনেকের চোখে পানি এসেছে। পদ্মা এলাকার মানুষ নদী ভাঙনের ফলে তাদের সব হারিয়েছে। এরমধ্যেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিল অসহায় মানুষদের জন্য কিছু করতে। তারপরই পদ্মাপাড়ের এ অসহায় মানুষদের জন্য পদ্মাপাড়ে টাউনশীট নির্মান করা হয়। এই টাউনিশটে এলাকার অসহায় মানুষরা আশ্রয় নিয়েছেন।

ওবায়দুল কাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শুধু নেত্রী নন, তিনি রাষ্ট্রনায়ক। আগামী নির্বাচনে তিনিই হবে আমাদের রাষ্ট্রনায়ক।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক, নৌ মন্ত্রী শাজাহান খান এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা।-একুশে টেলিভিশন