আইয়ুব বাচ্চুর দাফনের সিদ্ধান্ত ছেলে-মেয়ে দেশে ফেরার পর

জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর ছেলে ও মেয়ে আগামীকাল কানাডা থেকে দেশে ফেরার পর শিল্পীর দাফন ও নামাজে জানাজার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে স্কয়ার হাসপাতালে শিল্পীর পরিবারের পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের এ কথা জানানো হয়।

জনপ্রিয় সংগীত শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু আজ সকালে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজিউন)। মৃত্যুকালে শিল্পীর বয়স হয়েছিল ৫৬ বছর।

শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর গানের দল ‘এলআরবি’এর ম্যানেজার শামীম আহমেদ বাসসকে জানান, আজ সকাল ৯টা ৫৫ মিনিটে স্কয়ার হাসপাতালের চিকিৎসক শিল্পীকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। শিল্পী হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান বলে চিকিৎসক জানিয়েছেন।

শামীম বাসসকে জানান, এর আগে শিল্পীকে তার ধানমন্ডির বাসা থেকে পরিবারের লোকজন অচেতন অবস্থায় স্কয়ার হাসপাতালে নিয়ে আসেন।

শিল্পী আইয়ুব বাচ্চু এক ছেলে, এক মেয়ে ও স্ত্রীসহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন ও শুভাকাঙ্ক্ষী এবং অগণিত ভক্ত রেখে যান। তার ছেলে ও মেয়ে দুজনেই কানাডায় পড়াশোনা করছেন। তারা কানাডা থেকে আগামীকাল দেশে ফিরবেন। তারপর শিল্পীর নামাজে জানাজা ও দাফনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে বলে পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

হাসপাতালে শিল্পীর স্ত্রী ও এক ভাই রয়েছেন। তারা জানান, শিল্পীর লাশ স্কয়ার হাসপাতালের হিমঘরে রাখা হবে।

শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যু সংবাদ রাজধানীসহ দ্রুত সারাদেশে ছড়িয়ে পড়লে সর্বত্র শোকের ছায়া নেমে আসে। স্কয়ার হাসপাতালে শিল্পীকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে তার বন্ধুরা, সংস্কৃতি জগতের ব্যক্তিবর্গ ও অসংখ্য ভক্তরা ছুটে যান।

আইয়ুব বাচ্চু ১৯৬২ সালের ১৬ আগস্ট চট্টগ্রাম শহরের ফিরিঙ্গি বাজারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি চট্টগ্রাম সরকারি মুসলিম হাই স্কুল এবং চট্টগ্রাম কলেজে অধ্যয়ন করেন।

তিনি ছিলেন একাধারে গায়ক, লিড গিটারিস্ট, গীতিকার, সুরকার, প্লেব্যাক শিল্পী। তিনি ব্যান্ড দল এলআরবি’র প্রতিষ্ঠাতা। এ দলের লিড গিটারিস্ট ও ভোকাল।

দেশ স্বাধীনের পর তিনি সোলস ব্যান্ডদলের সাথে লিড গিটারিস্ট হিসেবে যুক্ত ছিলেন। সংগীত জগতে তার যাত্রা শুরু ১৯৭৮ সালে গানের দল ‘ফিলিংস’এর মাধ্যমে। তার ডাক নাম রবিন। মূলত রক ঘরানার শিল্পী হলেও আধুনিক গান, ক্ল্যাসিকেল এবং লোকসংগীতেও পারদর্শী ছিলেন।

তার কন্ঠ দেয়া প্রথম গান হচ্ছে ‘হারানো বিকেলের গল্প’। ১৯৮০ থেকে গান করেন সোলস’এ। ১৯৯১ সালে গঠন করেন ব্যান্ডদল ‘এলআরবি’। তার প্রথম একক অ্যালবাম ‘ রক্ত গোলাপ ’ ১৯৮৬ সালে প্রকাশ পায়। সেই থেকে তার ১২টি ব্যান্ড অ্যালবাম ও ১৬টি একক অ্যালবাম প্রকাশ পায়।

শিল্পী আইয়ুব বাচ্চুর জনপ্রিয় কয়েকটি গান হচ্ছে, চলো বদলে যাই, রুপালী গিটার, হাসতে দেখে গাইতে দেখে, ঘুম ভাঙা শহরে, দরোজার ওপাশে, ফেরারী, মেয়ে তুমি দুঃখ বুঝ না কেন, কষ্ট পেতে ভালোবাসি, কেউ সুখী নয়, বেলা শেষে ফিরে এসে, এক আকাশের তারা, অবাক হৃদয়, আমিও মানুষ, কষ্ট কাকে বলে, অনন্ত প্রেম তুমি দাও আমাকে।