‘শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশ ফেভারিট’

চলতি মাসের শেষ দিকে ৩ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে শ্রীলঙ্কা সফরে যাবে বাংলাদেশ। আর বাংলাদেশের ব্যাটিং অলরাউন্ডার অভিজ্ঞতার বিচারে নিজ দলকেই এগিয়ে রাখছেন। গতকাল মিরপুরে অনুশীলনের ফাঁকে গণমাধ্যমের মুখোমুখি হন মোসাদ্দেক। ২৪ বছর বয়সী এই অফস্পিন অলরাউন্ডার বলেন, ‘বিশ্বকাপের আগ থেকেই আমাদের ব্যাটসম্যানরা সবাই ভালো ছন্দে আছে। ব্যাটিংয়ে আমরা খুব ভালো করেছি বিশ্বকাপে।

সবদিক দিয়ে চিন্তা করলে এই সিরিজে আমরা ফেভারিট। খুব ভালো একটা সিরিজ আশা করছি।’ তবে শ্রীলঙ্কাকে একেবারে দুর্বলও ভাবছেন না মোসাদ্দেক। তিনি বলেন, ‘কোনো দলকে ছোট করে দেখতে চাই না। শ্রীলঙ্কাও খুব পিছিয়ে নেই, তারাও ভালো অবস্থানে আছে।’ ওয়ানডেতে বাংলাদেশের সাম্প্রতিক রেকর্ড ভালো। তবে পরিসংখ্যানের ভিত্তিতে নিজেদের ফেভারিট ভাবছেন না মোসাদ্দেক। তিনি বলেন, ‘ব্যাটিং-বোলিং দুটি বিভাগেই ভালো অবস্থানে আছি।

অভিজ্ঞতার কথা চিন্তা করলেও আমরা ভালো জায়গায় আছি। এ জায়গায় সব সময়ই বিশ্বের অন্য দলগুলোর তুলনায় এগিয়ে থাকি (ওয়ানডেতে)। অভিজ্ঞতায় আমরা খুব ভালো অবস্থানে আছি।’ বিশ্বকাপে অবশ্য শ্রীলঙ্কার পেছনে থেকে শেষ করেছে বাংলাদেশ। ৩ জয়ে (২টি পরিত্যক্ত) ৮ পয়েন্ট নিয়ে রাউন্ড রবিন লীগে ষষ্ঠ হয় লঙ্কানরা। সমান ম্যাচ জিতেও (একটি পরিত্যক্ত) বাংলাদেশ হয়েছে অষ্টম। আর পরিত্যক্ত হওয়ার ম্যাচটি ছিল শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে।

সেটিতে বাংলাদেশ জিততো বলেই ধারণা টাইগার ভক্তদের। তবে পরবর্তীতে ইংল্যান্ডকে হারিয়ে শ্রীলঙ্কা প্রমাণ করে তারা এখনো ফুরিয়ে যায়নি। আর ঘরের মাঠে বাংলাদেশের বিপক্ষে বরাবরই ভালো খেলে ১৯৯৬ বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়নরা। এখন পর্যন্ত মাত্র ২ ম্যাচে টাইগারদের কাছে হেরেছে দলটি। সর্বশেষ হারটি ২০১৭ সালে ডাম্বুলায়। এরপর গত বছর বাংলাদেশের মাটিতে ৩ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে মুখোমুখি হয়েছিল বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা। ওই সিরিজে প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশ জিতেও টানা দুটিতে হেরে সিরিজ খোয়ায়। এটাই শেষ বিশ্বকাপ নয়

২০১৯ বিশ্বকাপে সবচেয়ে অভিজ্ঞ দল ছিল বাংলাদেশ। তামিম ইকবাল, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের মতো অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান। মোস্তাফিজুর রহমানের মতো বোলার। সঙ্গে তুখোড় ফর্মে থাকা লিটন দাস-সৌম্য সরকার। বাংলাদেশেল ক্রিকেট ভক্তরা বড় কিছুর স্বপ্নই দেখছিল। প্রথম ম্যাচে অন্যতম পরাশক্তি দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে বাংলাদেশও শুরুটা করেছিল দুর্দান্ত। কিন্তু এরপরও অষ্টম হয়ে শেষ করেছে তারা।

সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম ও মোস্তাফিজ ছাড়া আর কেউ বলার মতো পারফেমন্স করতে পারেননি। আর বাংলাদেশের বিশ্বকাপ যে ভালো কাটেনি সেটা অকপটে স্বীকার করেন মোসাদ্দেক। তবে এখানেই শেষ দেখছেন না তিনি। তার চোখ সামনে, আগামী বিশ্বকাপে। গতকাল মিরপুরে মোসাদ্দেক বলেন, ‘বিশ্বকাপ আমাদের গড়পড়তা গেছে। এটা নিয়ে চিন্তা করলে অনেক কিছু আবার চিন্তা না করলে কিছুই না।

জীবনে একটা বিশ্বকাপই সবকিছু না। সব শেষ হয়ে গেছে এমন নয় ব্যাপারটা। দিন শেষে আমাদের ক্রিকেট খেলতে হবে। এটা নিয়ে মনে হয় না চিন্তা করার সময় আছে।’ বিশ্বকাপের আগে আয়ারল্যান্ড সফরে ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজ জিতেছিল বাংলাদেশ। ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টাইগারদের জয়ের নায়ক ছিলেন এই মোসাদ্দেক। ৫২ রানে ঝড়ো ইনিংস খেলে বাংলাদেশি ভক্তদের স্বপ্ন দেখাচ্ছিলেন তিনি। কিন্তু বিশ্বকাপে খুব একটা ভালো করতে পারেননি মোসাদ্দেক।

সাত ম্যাচে কোনো ফিফটি নেই। সর্বোচ্চ ৩৫। আর বল হাতে সব ম্যাচ মিলিয়ে পান ৩ উইকেট। ভারতের বিপক্ষে ম্যাচটি জিতলে বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল খেলার আশা বেঁচে থাকতো বাংলাদেশের। ওই ম্যাচে প্রয়োজনের মুহূর্তে মাত্র ৩ রান করে আউট হন মোসাদ্দেক। শেষ পর্যন্ত ২ ওভার বাকি থাকতে অলআউট হয়ে ২৮ রানে হেরে ছিটকে যায় বাংলাদেশ। সূত্র: মানবজমিন।