তৃতীয় লিঙ্গের ক্রিকেটারদেরকে জাতীয় দলে খেলার অনুমতি দিলো অস্ট্রেলিয়া!

ক্রিকেট ইতিহাসের মহৎ এক সিদ্ধান্তের কথা জানালো ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। ইতিহাসে প্রথমবারের মতো কোন দেশ হিসেবে তৃতীয় লিঙ্গের ক্রিকেটারদের যোগ্যতা থাকলে জাতীয় দলে খেলার অনুমতি দিলো তারা। এখন থেকে তৃতীয় লিঙ্গের ক্রিকেটাররা দেশটির সর্বোচ্চ বা জাতীয় দলের হয়ে খেলতে পারবেন।ক্রিকেট বিশ্বে নারী কিংবা পুরুষদের জাতীয় দল খেললেও এখন পর্যন্ত তৃতীয় লিঙ্গের কোন ক্রিকেটারকে জাতীয় পর্যায়ে কোন দেশের হয়ে খেলতে দেখা যায়নি।

আইসিসির কোথাও এমন উল্লেখও নেই যে তৃতীয় লিঙ্গের কোন ক্রিকেটার অংশ নিতে পারবে না। তবুও এমনটা সচরাচর দেখা যায়না।তবে এই এবার কিছুটা উদারনীতিতে হাটলো অস্ট্রেলিয়া। আইসিসির নিয়ম মেনেই দেশের ক্রিকেটকে তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের জন্য উন্মুক্ত করে দিচ্ছে তারা। টেস্টারোন হরমোনের পরীক্ষা দিয়ে রাজ্য ও জাতীয় পর্যায়ের নারী ক্রিকেট দলে খেলতে পারবেন এমন ক্রিকেটাররা।

এ ব্যাপারে এক বিবৃতিতে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রধান নির্বাহী কেভিন রবার্টস বলেন, ‘বর্তমান যুগে এই মানুষদের (তৃতীয় লিঙ্গ) বৈষম্য, নিগৃহীত কিংবা দমিয়ে রাখার কোনো অধিকার আমাদের নেই। এটা উচিতও নয়। আজ ইতিবাচক পরিচয়ে আমরা এই মানুষদের অংশগ্রহণ করার সুযোগ নিয়ে আমাদের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের নজির রাখতে চলেছি। দেখাতে চাইছি আমাদের ক্রিকেটের বিস্তর সংস্কৃতিকে।’

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার এমন মহতী উদ্যোগের পেছনে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা পালন করছেন নিই সাউথ ওয়েলসের হয়ে খেলা তৃতীয় লিঙ্গের ক্রিকেটার এরিকা জেমস।