আমার মতে নাঈম আজকের ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় : রোহিত শর্মা

কত কাছে, তবু কত দূরে- আজকের ম্যাচেই অবস্থাটা এমনই। তবে এবারই প্রথম নয়, বাংলাদেশ ক্রিকেট দল এমন অবস্থায় পড়েছে অনেকবার। কখনো ১ রান, কখনো ২ রান আবার কখনো শেষ বলে ছক্কা খেয়ে হেরে যাওয়ার ঘটনা খুব একটা পুরনো নয়। সে তুলনায় ভারতের বিপক্ষে সদ্য সমাপ্ত সিরিজের শেষ ম্যাচটি বরং মেনে নেওয়া যায়।

ম্যাচ শেষে ৪৪ বলে ৮১ রান করা সাহসী তরুণ নাঈম শেখের প্রশংসা করতে ভোলেননি ভারতীয় দলের অধিনায়ক রোহিত শর্মা। রোহিত বলেন, ‘বাংলাদেশ দলের নাঈম খুব ভালো ব্যাটিং করেছে। আমরা যেদিকেই ফিল্ডিং সাজিয়েছি, ও তার বিপরীত দিকে খেলেছে। আমার মতে নাঈম আজকের সেরা খেলোয়াড় বাংলাদেশ দলে।’

এদিকে, ভারতের বিপক্ষে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টি-টুয়েন্টিতে ৮১ রানের অসাধারণ ইনিংস খেলে স্টার অব দ্য ম্যাচ হয়েছেন বাংলাদেশ ওপেনার নাঈম শেখ। দল জিতলে ৪৮ বলে ১০টি চার ও ২ ছক্কায় সাজানো নান্দনিক ইনিংসটা বাঁধিয়ে রাখতে পারতেন কুড়ি বছরের এ তরুণ। হাতে উঠতে পারত ম্যাচ সেরার পুরস্কারও। কিন্তু বাংলাদেশ হেরে যাওয়ায় এ পুরস্কারটি এখন কেবলই সান্ত্বনার!

ম্যাচ সেরা ও সিরিজ সেরা হয়েছেন দীপক চাহার। রোববার ৭ রানে ৬ উইকেট শিকার করে টি-টুয়েন্টির ইতিহাসের সেরা বোলিং ফিগার এখন ভারতীয় এ পেসারের। ৮ রানে ৬ উইকেট নিয়ে ৭ বছর সেরার রেকর্ডটি ধরে রেখেছিলেন শ্রীলঙ্কান স্পিনার অজন্তা মেন্ডিস।

নাগপুরে রঙিন পোশাকে সিরিজের শেষ লড়াইয়ে বাংলাদেশকে ১৭৫ রানের চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছিল ভারত। ব্যাটিংয়ে নেমে নাঈমের ওপেনিং পার্টনার লিটন দাস সাজঘরে ফেরেন ৯ রান করে। সৌম্য সরকার ফিরে যান প্রথম বলেই। ১২ রানে দুই উইকেট হারানোর পরও বাংলাদেশকে ম্যাচে রেখেছিলেন এই সিরিজেই অভিষিক্ত নাঈম।

মোহাম্মদ মিঠুনের সঙ্গে তৃতীয় উইকেট জুটিতে ৯৮ রান যোগ করে নাঈম আশা দেখাচ্ছিলেন প্রথমবার ভারতের বিপক্ষে টি-টুয়েন্টি সিরিজ জয়েরও। মিঠুনের বিদায়ে জুটি ভাঙে। মুশফিক-আফিফ-মাহমুদউল্লাহ হন ব্যর্থ। অপূর্ণতা রেখে ৮১ করে ফিরে যান নাঈমও। শেষে চাহার-ঝড়ে বাংলাদেশ গুটিয়ে যায় ১৪৪ রানে। ১৫ ওভার পর্যন্ত সম্ভাবনা ধরে রাখা দলটি শেষঅবধি কিনা হারল ৩০ রানের ব্যবধানে।