দু’দিনেই ফুসফুসের সব ময়লা পরিষ্কারের উপায়

দিনকে দিন দূষণের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে ফুসফুসের নানা অসুখ। শ্বা’স-প্রশ্বা’সের সঙ্গে শরীরে প্রবেশ করা বিষাক্ত ধোঁয়া, ধূলিকণায় ফু’সফুসে ক্যা’ন্সার বেড়ে চলেছে সমান তালে। যদিও ধূ’মপান যারা করেন তাদের ক্ষেত্রে ফু’সফুসের সমস্যা হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে। তবে ধূ’মপান করুন আর নাই করুন, আপনার ফু’সফুসে সমস্যা হতেই পারে।

এমন প্রশ্নের উত্তরে স্বাস্থ্য বিশে’ষজ্ঞরা বলছেন, আপনি চাইলে মাত্র দু-দিনেই ফু’সফুস থেকে দূষি’ত পদার্থকে ঝেরে পরিষ্কার করে ফেলতে পারেন। এর জন্য অনেক উপায় রয়েছে। তারা বলেন, ফুস’ফুসকে সতেজ রাখার তেমনই ১০টি মুশকিল আসান আপনার জন্য। এর মধ্য থেকে সুবিধা মতো যেকোনো দুইটি পদ্ধতি বেছে নিন। ভালো থাকবে ফুস’ফুস। উপায়গুলো হলো-

১. দুই-তিন দিনের জন্য দুগ্ধজাতীয় সব খাবার বাদ দিন। এমনকি কফিও ছোঁবেন না। ২. রাতে শুতে যাওয়ার আগে গরম গরম এক কাপ ‘গ্রিন টি’ খান। ৩. সকালে ঘুম থেকে উঠে উষ্ণ জলে লেবু মিশিয়ে পান করুন। লেবুর মধ্যে থাকা অ্যান্টি অক্সি’ডেন্ট ফুসফু’স পরিষ্কার করে। ৪. সকালে প্রাতঃরাশে যদি সম্ভব হয় আনারসের জুস খান। ৫. এখন বারো মাসই গাজর পাওয়া যায়। প্রাতঃরাশে নিয়মিত গাজরের জুসও খেতে পারেন। এর ফলে র’ক্ত অ্যাল’কালাইজড হবে।

৬. দুপুরে মধ্যাহ্ন ভোজনের পর কলা খান। কলা পটাশি’য়াম পরিষ্কারের প্রক্রিয়াকে সাহায্য করে। ৭. রাতে ক্র্যানবেরির জুস পান করুন। ফুস’ফুসে আশ্রয় নেয়া ব্যাক’টেরিয়া দূর করতে সাহায্য করে। ৮. ব্যায়াম করলে, ঘন ঘন শ্বা’স-প্র’শ্বাসের সঙ্গে ফুসফুসের সঞ্চালন দ্রুত হয়। ফুস’ফুসকে স্বাভাবিক হতে সাহায্য করে। ৯. বিষা’ক্ত পদার্থ দূর করতে সকালে স্টিম বাথ নিন। ঘামের সঙ্গে শরীরের বিষা’ক্ত পদার্থ বেরিয়ে যাবে।

১০. মুখ ঢেকে গরম পানির ভাপ নিন। পারলে পানিতে দু-ফোটা ইউক্যা’লিপটাসের তেল ফেলে দিন। এই পদ্ধতিতেও শরীর থেকে বিষা’ক্ত পদার্থ বেরিয়ে যায়। সূত্র: হেলদিফুডটিমডটকম