হাইকোর্টে ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ারের ক্ষমা প্রার্থনা

ভ্রা’ম্যমাণ আদা’লতে সাজা দেওয়ার চার মাস পার হলেও আদেশের সার্টিফায়েড (প্রত্যয়িত) অনুলিপি না দেওয়ার ঘটনায় হাইকো’র্টে ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ান’র (র‌্যাব) নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারওয়ার আলম। রোববার বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকো’র্ট বেঞ্চে হাজির হয়ে ক্ষমা প্রার্থনা করেন সারওয়ার আলম। র‌্যাবের ভ্রা’ম্যমাণ আ’দালত পরিচলানার জন্য প্রয়োজনীয় জনবল ও সরঞ্জাম দিতেও এ সময় স্বরাষ্ট্র সচিবকে নির্দেশ দেন আদা’লত।

সারওয়ার আলমের পক্ষে আ’দালতে শুনানি করেন আইনজীবী মাসুদ হাসান চৌধুরী পরাগ এবং রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত তালুকদার। ক্ষমা প্রার্থনা করে সারওয়ার আলম আদা’লতকে বলেন, ‘ভবিষ্যতে এ বিষয়ে সতর্ক থাকব।’

উল্লেখ্য, গত ১৮ নভেম্বর সারওয়ার আলমকে তলব করেন হাইকো’র্ট। ভ্রাম্য’মাণ আ’দালত এক ব্যক্তিকে সাজা দেওয়ার পর চার মাস পার হলেও আদেশের কপি না দেওয়ার ব্যাখ্যা দিতে তাকে তলব করা হয়।

সাজা দেওয়ার চার মাস পরও আদেশের কপি দেওয়ার ক্ষেত্রে নিষ্ক্রিয়তা চ্যালেঞ্জ করে মো. মিজান মিয়া ১৭ নভেম্বর রিটটি করেছিলেন।