প্রতিবেদন না আসায় পেছাল খালেদার জামিন শুনানি

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিন শুনানির জন্য আগামী বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) দিন ধার্য করেছেন আদালত।আজ বৃহস্পতিবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ এ আদেশ দিয়েছেন। সকালে খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষায় আরও সময় চেয়ে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ।খালেদার স্বাস্থ্যগত তথ্যের বিষয়ে আদালতের কাছে সময়ে চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, তার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য আরও সময়ের প্রয়োজন। আরও কিছু পরীক্ষা বাকি রয়েছে। এজন্য সময় আবেদন করা হয়েছে।

তবে নির্ধারিত সময়ে এটি তৈরি না হওয়ায় তা আজ আদালতে দাখিল করতে পারিনি রাষ্ট্রপক্ষ।এ সময় প্রধান বিচারপতি এ রিপোর্ট দাখিলের জন্য ১২ ডিসেম্বর দিন ধার্য করেন। তবে খালেদার আইনজীবীরা অবশ্য চান ৭ ডিসেম্বর যেন এ দিন ধার্য করা হয়।এরআগে মামলাটি পরবর্তী আদেশের জন্য প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চের কার্যতালিকার সাত নম্বরে রাখা হয়। সবদিক বিবেচনায় নিয়ে সকাল থেকে আদালত জুড়ে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয় সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন।

এর আগে খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা জানান, তার স্বাস্থ্য পরীক্ষায় গঠিত মেডিকেল বোর্ডের রিপোর্ট পাওয়া সাপেক্ষে শুনানি হয়।বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, আপিল বিভাগের নির্দেশনা হাতে পাওয়ার পর গত মঙ্গলবার মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়। তবে স্বাস্থ্য পরীক্ষার মেডিকেল বোর্ডের রিপোর্ট এখনো পাননি তারা।গত ২৮ নভেম্বর জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাত বছরের কারাদণ্ডপ্রাপ্ত খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের শুনানি শুরু হয়। ওইদিন তার জন্য মেডিকেল বোর্ড গঠন করে ৫ ডিসেম্বরের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন আপিল বিভাগ। গত ১ এপ্রিল থেকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

এদিকে এ মামলার তার জামিন শুনানিকে ঘিরে চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে আদালত প্রাঙ্গনে।জানা গেছে, জামিন শুনানির প্রস্তুতি নেয়ার পাশাপাশি আন্দোলনেরও প্রস্তুতি নেন বিএনপির আইনজীবীরা। অন্যদিকে আদালত প্রাঙ্গণে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করা হলে প্রতিরোধ করার ঘোষণা দেন আওয়ামী আইনজীবীরা।খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন বলেন, উদ্বেগ বাড়াটা স্বাভাবিক। দেশের সর্বোচ্চ আদালত একটা রিপোর্টের জন্য দিন রেখেছেন। এ রিপোর্টটা কী হবে এবং আদালত কী সিদ্ধান্ত নেবেন তার জন্য দেশবাসী অপেক্ষা করছেন। আইনজীবীরাও সেই অপেক্ষায় রয়েছেন।

তবে দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান বলেন, এ নিয়ে উদ্বেগ নেই। আইনি লড়াইয়ে ছাড় দেয়া হবে না।জামিন শুনানিকে ঘিরে আদালত প্রাঙ্গণে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা হলে প্রতিরোধ করার কথাও জানান আওয়ামীপন্থী আইনজীবীরা।তথ্য সূত্র : বাংলাদেশের খবর