অপমানজনক কথার বিচার চাইতে থানায় সাত বছরের শিশু

অভিযোগের বিষয় ছিল তার সহপাঠীদের খেলতে বাধা দেওয়া। এমন অভিযোগ কোনোদিন শুনেননি নাচোল থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মাহবুবুর রহমান। মাত্র সাত বছরের একটি শিশু আহম্মেদ বিন কাদেরী থানায় উপস্থিত হয়ে কেঁদে কেঁদে কারও বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ করতে পারে এটা ভাবতেও পারছেন না নাচোল থানার ওসি। শিশু আহম্মেদ বিন কাদেরী এশিয়ান স্কুল অ্যান্ড কলেজের দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থী।

তার বাবার নাম আব্দুল কাদের। তাদের বাড়ি নাচোল সদর ইউনিয়নের ঘিওন গ্রামে। শিশু কাদেরী তার নানার বাড়ি নাচোল রেলস্টেশন এলাকায় উপজেলা ভূমি অফিসের দক্ষিণ দিকে থেকে পড়াশোনা করে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২ টায় তার সহপাঠীদের খেলা করতে বাধা দেন ওই মহল্লার মমতাজ বেগম ও মাসুদা বেগম নামের দুই গৃহকর্মী। তারা মুখ খারাপ করে কাদেরীকে গালমন্দ করে বলেও তার অভিযোগ। তাকে নাকি অপমানজনক কথাও বলা হয়েছে বলে কেঁদে কেঁদে ওসি তদন্তকে বলেন। কাদেরীর এমন অভিযোগ মনোযোগ দিয়ে শোনেন নাচোল থানার ওসি।

এ সময় স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মী ও মানবাধিকার কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। পরে কর্তব্যরত পুলিশ অফিসার পাঠিয়ে আহম্মেদ বিন কাদেরীর বিষয়টি সমাধান করা হয়েছে। এত অল্প বয়সে কাদেরী একাই থানায় এসে যে অভিযোগ করেছে তা শুনে হতভম্ব হয়ে পড়েন এলাকাবাসীও।