শীতকালে বাঁধাকপি খান, ছোট-বড় কোনও রোগই কাছে ঘেঁষবে না

শীত এসে গেল প্রায়! বাজার উপচে পড়েছে নানা রকমের সবজিতে! আর শীতকালে বাঁধাকপি না খেলে শীতটা ঠিক উদযাপন করা হয় না! তবে শুধু খেতেই সুস্বাদু নয়, বাঁধাকপির রয়েছে আরও নানা গুণ ! এতে থাকা ম্যাঙ্গানিজ, ডায়াটারি ফাইবার, ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, ভিটামিন সি, ভিটামিন বি ৬, ভিটামিন এ, ভিটামিন কে এবং ভিটামিন ই শরীরে প্রবেশ করার পর এমন ম্যাজিক দেখায় যে ছোট-বড় কোনও রোগই ধারে কাছে ঘেঁষতে পারে না।

বাঁধাকপিতে প্রচুর পরিমাণে মজুত রয়েছে সালপোরফেন-এর মতো অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি উপাদান, যা শরীরে প্রদাহ বা ইনফ্ল্যামেশনের মাত্রা কমায়। শরীরে ইনফ্ল্যামেশনের মাত্রা বৃদ্ধি পেলে একদিকে যেমন দেহের গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ ক্ষতিগ্রস্থ হয়, তেমনি ঝুঁকি বাড়ে ক্যা’ন্সারের মতো মারণ রোগেরও। বাঁধাকপি ফাইবারে ভরপুর! কাজেই, একদিকে যেমন কনস্টিপেশন কমায় অন্যদিকে বাওয়েল মুভমেন্ট উন্নত করে, একাধিক পেটের রোগের সমস্যারও মোকাবিলা করে।

এভিডেন্স বেসড কমপ্লিমেনটারি অ্যান্ড অলটারনেটিভ মেডিসিনে প্রকাশিত এক রিপোর্ট অনুসারে টানা ৬০ দিন বাঁধাকপি খেলে রক্তে শর্করার মাত্রা স্বাভাবিক মাত্রায় চলে আসে। সেই সঙ্গে রেনাল ফাংশনের উন্নতি ঘটে এবং ওজন কমতে শুরু করে। আসলে বাঁধাকপিতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট এবং হাইপার-গ্লাইসেমিক উপাদান রয়েছে, যা ডায়াবিটিস নিয়ন্ত্রণে রাখে। বাঁধাকপি শরীরে ভিটামিনের ঘাটতি দূর করে। অর্ধেক কাপ সেদ্ধ বাঁধাকপিতে যে পরিমাণ ভিটামিন সি থাকে, তা গোটা দিনের চাহিদার প্রায় ৪৭ শতাংশ পূরণ করে, আর ভিটামিন কে-এর চাহিদা পূরণ করে প্রায় ১০০ শতাংশ।

বাঁধাকপিতে উপস্থিত ফোটোনিউট্রিয়েন্টস, যেমন পলিফেনল এবং গ্লুকোসিনোলেট শরীরে অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট এবং অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি উপাদানের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। ফলে হার্টের রোগের প্রকোপ কমানোর পাশাপাশি ক্যান্সার, অ্যালঝাইমারস এবং ম্যাকিউলার ডিজেনারেশনের মতো রোগের সম্ভাবনা দূর হয়।

বাঁধাকপিতে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় ক্যালসিয়াম,ম্যাগনেসিয়াম এবং পটাশিয়াম। এই সবকটি উপাদানই বোন ডেনসিটি বাড়াতে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। সেই সঙ্গে অস্টিওপোরোসিস-এর মতো রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কাও কমে। মাথা যন্ত্রণায় পরিমাণ মতো বাঁধাকপির পাতা একটা কাপড়ে রেখে কপালে বেঁধে দিন। কিছু সময় পরই দেখবেন, ব্যথা গায়েব! অথবা, ১ কাপ কাচা বাঁধাকপির রস খান! ক্রনিক মাথা যন্ত্রণা কমাতে এক্সপার্ট!

বাঁধাকপিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, যা শরীরে জমে থাকা অতিরিক্ত মেদ ঝড়িয়ে ফেলে। অন্যদিকে বাঁধাকপিতে রয়েছে একেবারে কম মাত্রায় ক্যালরি এবং কার্বোহাইড্রেট। ফলে এটি খেলে ওজন বৃদ্ধির কোনও সম্ভাবনাই থাকে না।

প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন কে থাকায় নিয়মিত বাঁধাকপি খেলে ব্রেন পাওয়ার বৃদ্ধি পায়। সেই সঙ্গে নার্ভের ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা কমে। অ্যালঝাইমার্স সহ একাধিক ব্রেন ডিজিজে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা হ্রাস পায়। বাঁধাকপিতে রয়েছে বিটা-ক্যারোটিন যা দৃষ্টিশক্তির উন্নতি ঘটায়।