ড্রাফটে অবিক্রীত থেকেও বিপিএলের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি রানা

বিপিএলের আগে এস এ গেমসে ছিলেন একবারে মলিন। পেয়েছিলেন মাত্র ২টি উইকেট। তার আগে ইমার্জিং এশিয়া কাপে ছিলেন আরো ছন্নছাড়া পুরো টুর্নামেন্টে পাননি কোন উইকেট। তাই স্বভাবতই বিপিএল ড্রাফটে কেউ আগ্রহ দেখায়নি তার প্রতি। ছিলেন অবিক্রীত। কথায় আছে প্রতিভা লুকিয়ে রাখা যায়না। সেটাই হয়তো হয়েছে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের মেহেদি হাসান রানার সাথে। যার বিপিএল খেলারই কথা ছিলনা সে এখন বিপিএলের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি।

তবে ওইযে প্রতিভা যে লুকিয়ে রাখা যায়না। চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের নেট বোলার হিসেবে ব্যবহার করা হত রানাকে। নেট এ অসাধারণ বোলিং করে মন জয় করেন চট্টগ্রামের সিনিয়র খেলোয়াড়দের। ব্যাস তাকে নিয়ে নেয়া হল মূল দলে।

তারপরের গল্পটা সবারই জানা৷ টুর্নামেন্টে এখন পর্যন্ত ৪ ম্যাচ খেলে নিয়েছেন ১২ উইকেট। যা এবারের বিপিএলের এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ। রানবন্যার এই টুর্নামেন্টে রানও দিচ্ছেন কিপটেমি করে। পুরো সিজন এই ফর্ম ধরে রাখলে হয়তো এবারের বিপিএলের সেরা বোলারের পুরস্কারটা রানার হাতেই উঠবে।