বৃহস্পতিবার বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ

আগামী বৃহষ্পতিবার বলয়গ্রাস সূর্যগ্রহণ হবে। সূর্যগ্রহণটি বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ৮টায় শুরু হয়ে দুপুর ২টা ৫ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডে শেষ হবে। আকাশ পরিষ্কার থাকলে বাংলাদেশে আংশিক সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে। আজ মঙ্গলবার আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) এক বিজ্ঞপ্তিতে বিস্তারিত তথ্যের জন্য www.bmd.gov.bd/astronomy/eclipse তে সার্চ করতে বলা হয়েছে। খবর:বাসস

বছরের শেষ সূর্যগ্রহণ দেখতে এখন প্রস্তুত গোটা দেশ। আগামী ২৬ ডিসেম্বর বছরের শেষ সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে। উৎসাহীদের জন্য আনন্দের খবর যে, এইবারে ভারত থেকে এই অসামান্য মহাকাশীয় ঘটনাটি দৃশ্যমান হবে। স্পেস ডট কম সূত্রের খবর, ভারত ছাড়াও সৌদি আরব, সুমাত্রা এবং বোর্নিও থেকেও দেখা যাবে এই সূর্যগ্রহণ।

সূর্যগ্রহণ আসলে কী?

সূর্যগ্রহণ একটি জ্যোতির্বিজ্ঞানীয় ঘটনা। চাঁদ যখন নিজের কক্ষপথে ঘুরতে ঘুরতে সূর্য এবং পৃথিবীর মাঝখানে আসে এবং পৃথিবীর উপর একটি ছায়া ফেলে তখন সূর্যগ্রহণ ঘটে। অর্থাৎ সূর্য ও পৃথিবীর মাঝে চাঁদ অন্তরায় হয়ে গেলে সূর্যকে আর দেখা যায় না। চাঁদের এই ঢেকে ফেলার ফলে গ্রহণটি আংশিক হতে পারে, পূর্ণগ্রাস বা বলয়াকার হতে পারে।

পরবর্তী সূর্যগ্রহণটি কি বলয়াকার, আংশিক নাকি পূর্ণগ্রাস?

পরবর্তী সূর্যগ্রহণটি হবে ‘অ্যানুলার’ (annular) বা বলয়াকার। এটি ‘আগুনের বলয়’ (ring of fire) নামেও পরিচিত। যখন চাঁদ তার কেন্দ্র থেকে সূর্যকে আচ্ছাদিত করে তখন চাঁদের ঢেকে দেওয়া অংশটুকু বাদে সূর্যের বাকিটা দৃশ্যমানই থাকে। দেখে যেন মনে হয় একটা সোনালি রঙের আংটি। এই ধরণের সূর্যগ্রহণকেই বলয়াকার সূর্যগ্রহণ বলে। সুতরাং, এই বছর, চাঁদ সূর্যকে মাঝখান থেকে ঢেকে ফেলবে, এবং সূর্যের প্রান্তকে ‘আগুনের আংটি’ বা ‘আগুনের বলয়’ হিসাবেই দেখা যাবে।

গ্রহণ দেখার জন্য সেরা জায়গা কোনগুলো?

সূত্রের খবর, কেরালার চেরুভাথুর এই বছর সৌরগ্রহণ প্রত্যক্ষ করার জন্য সেরা স্থানগুলির মধ্যে অন্যতম একটি। দ্য হিন্দু সূত্রের খবর, কাসারগোদ জেলার একটি শহর চেরুভাথুর পৃথিবীর এমন কয়েকটি জায়গার মধ্যে অন্যতম যেখান থেকে এই গ্রহণ সবচেয়ে পরিষ্কার দেখা যাবে।

তবে সাধারণ মানুষদের পরামর্শ একটাই যে, কোনওভাবেই যেন খালি চোখে এই সূর্যগ্রহণ না দেখেন। সূর্যগ্রহণ দেখতে অন্ততপক্ষে চোখে সানগ্লাস পরা বাধ্যতামূলক।