রাত জাগা পুরুষ বিয়েতে আগ্রহী নন

এমন অনেক মানুষই আছেন, যারা রাত জাগতে পছন্দ করেন। তবে এই রাত জাগার পেছনে কিছু গোপন তথ্যের সন্ধান পেয়েছেন গবেষকরা। নতুন এক গবেষণায় দেখা গেছে, যেসব পুরুষ অধিক রাত পর্যন্ত জেগে থাকতে অভ্যস্ত এবং সকালে অনেক দেরিতে ঘুম থেকে জাগেন, তারা নানা গুরুত্বপূর্ণ দিক থেকে ওদের চেয়ে পৃথক, যারা দ্রুত বিছানায় যায় আর ভোরে ঘুম থেকে ওঠেন।

যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো ইউনিভার্সিটির ‘তুলনামূলক মানব উন্নয়ন’ বিভাগের অধ্যাপক দারিও মেস্ত্রিপেইরি বলেন, ‘নারী হোক আর পুরুষই হোক, যারা রাত জাগতে ভালোবাসে, তারা সাধারণত বিয়ে থেকে দূরে থাকতে চায় অথবা তাদের রোমান্টিক সম্পর্কের মেয়াদ বেশিদিন স্থায়ী হয় না। আবার যারা সকাল সকাল ঘুমাতে অভ্যস্ত আবার ভোরে বিছানা ছাড়তে ভালোবাসে, তাদের ব্যাপারে ঘটনাটি উল্টোটিই সাধারণত হয়ে থাকে। অথচ জৈবিক দিক থেকে আর্লি বার্ড বা রাতের প্রথম প্রহরে ঘুমাতে অভ্যস্তদের চেয়ে রাতজাগা পুরুষদের চা’হিদা থাকে কমপক্ষে দ্বিগুণ।

ইভলিউশনারি সাইকোলজি নামের একটি আন্তর্জাতিক জার্নালে গবেষকদের এ গবেষণার ফল প্রকাশিত হয়। তারা শিকাগো ইউনিভার্সিটির পাঁচ শতাধিক গ্রাজুয়েট শিক্ষার্থীর ওপর পরিচালিত প্রাথমিক জরিপের তথ্যের ভিত্তিতে নতুন গবেষণার মাধ্যমে এ সিদ্ধান্তে উপনীত হন। ওই জরিপে দেখানো হয়, নারী শিক্ষার্থীর চেয়ে পুরুষ শিক্ষার্থীরা আর্থিক ঝুঁকি বেশি নিতে আগ্রহী থাকে। তবে এ প্রাথমিক গবেষণায় এটাও দেখা গেছে, আর্থিক ঝুঁকি নেয়ার পুরুষের তুলনায় নারীর হরমোন নিঃস’রণের হার বেড়ে যায়।

অধ্যাপক দারিও মেস্ত্রিপেইরি জানতে আগ্রহী হয়ে ওঠেন, কেন নারীর চেয়ে পুরুষ বেশি আর্থিক ঝুঁ’কি নিতে আগ্রহী হয়। তিনি এটাও জানতে আগ্রহী হয়ে ওঠেন, আর্থিক ঝুঁ’কি নেয়ার ব্যাপারে নারী-পুরুষের ভিন্নধ’র্মী আচরণের পিছনে ঘুমের প্যাটার্ন কোনো ভূমিকা পালন করে কিনা। বিষয়টি নিয়ে তিনি নতুন গবেষণায় মেতে ওঠেন। তার ডাকে ২০১ ভলান্টিয়ার সাড়া দেন, যাদের ১১০ জন পুরুষ ও ৯১ জন নারী।

তারা তাদের কার্টিসল ও টেস্টোস্টেরন (দুটোই স্টেরয়েড হরমোন) লেভেল পরিমাপের জন্য তাদের থুতু সরবরাহ করেন। পরে ভলান্টিয়াররা আর্থিক ঝুঁ’কি নেয়ার প্রবণতা নিয়ে কম্পিউটারাইজড পরীক্ষায় অংশ নেয়ার আগে ও দুটো লেভেলের স্ত’র মাপা হয়।ভলান্টিয়াররা আর্থিক ঝুঁ’কি নেয়ার ব্যাপারে তাদের আগ্রহের বর্ণনা দেন এবং তাদের ঘুমের ধরন সম্পর্কেও তথ্য দেন। অধ্যাপক মেস্ত্রিপেইরি দেখতে পান, পুরুষের কার্টিসল ও টেস্টোস্টেরন নিঃস’রণের লেভেল শুরুতে নারীর তুলনায় বেশি ছিল।

অবশ্য যেসব নারী রাত জাগে, তাদের এ দুটো হর’মোন নিঃসর’ণের লেভেল আর্লি বার্ড পুরুষের চেয়ে বেশি। বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক গবেষণার পর অধ্যাপক মেস্ত্রিপেইরি সিদ্ধান্ত টানেন এভাবে- ‘রাত জাগা পুরুষরা সাধারণত বিয়েতে অনা’গ্রহী থাকে। (সূত্র: অনলাইন থেকে সংগৃহীত)