তামিমকে বলেছিলাম, ‘লারার রেকর্ড ভেঙে ফেল’

বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটে সর্বশেষ ট্রিপল এসেছিল ২০০৭ সালের ২১ মার্চ। বরিশাল বিভাগের বিপক্ষে সিলেটের হয়ে অপরাজিত ৩১৩ প্লাস রান করেছিলেন জাতীয় দল থেকে বহু আগেই বাদ পড়া রকিবুল হাসান। ১৩ বছর পর সেই রকিবুলের সামনেই নতুন রেকর্ড গড়ে ফেললেন দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল। আগের দিন মুমিনুল ইসলাম বলেছিলেন, উইকেটে টিকে থাকলে তামিম ইকবাল অবশ্যই ট্রিপল সেঞ্চুরি করবেন।

গতকাল রবিবার তামিম সেটা করে দেখিয়েছেন। সেটাও আবার রকিবুলের সামনে। শুধু ট্রিপলই নয়, তামিম গড়েছেন সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রানের রেকর্ড। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে বাংলাদেশের হয়ে ইতিহাসের সর্বোচ্চ রান এটি। যার রেকর্ড ছাড়িয়ে গেলেন, সেই রকিবুল হাসান কাছেই ফিল্ডিং করছিলেন। প্রাণখোলা হাসিতে ছুটে এসে সবার আগে তামিমকে অভিনন্দন জানান তিনি।

ওই মুহূর্তে তামিমকে কী বলেছিলেন, সেটা নিজেই ফাঁস করেছেন রকিবুল, ‘শুনলে মজা মনে হতে পারে, আমি তামিমকে বলছিলাম, লারার রেকর্ড ভেঙে ফেল! পরে তো ওরা ইনিংস ঘোষণা করল।’ ক্যারিবীয় কিংবদন্তি ব্রায়ান লারার প্রথম শ্রেণির রেকর্ড ৫০১ রানের। সেটি ছিল অনেক দূরের পথ। টেস্টে লারার রেকর্ড ৪০০ রানের। মধ্যাঞ্চলের বিপক্ষে যখন ইনিংস ঘোষণা করল পূর্বাঞ্চল, তামিমের নামের পাশে তখন অপরাজিত ৩৩৪। লারার রানের ধারেকাছে যাওয়া হয়নি।

তবে রকিবুল হাসানের ৩১৩ রানের রেকর্ড টপকে গেছেন। এমন একটি রেকর্ড হারালে খুশি হওয়ার কারণ নেই। তবে গতকাল দিনের খেলা শেষে মাঠ ছাড়ার সময় রকিবুল হাসিমুখে জানালেন, তামিম এটা ভেঙেছে বলেই তিনি খুশি। রকিবুল বলেন, ‘তামিমকে অনেক অনেক অভিনন্দন। যেভাবে ব্যাট করেছে, এই রেকর্ড ওর প্রাপ্য। সেই বয়সভিত্তিক পর্যায় থেকে আমরা একসঙ্গে খেলছি, অনূর্ধ্ব-১৭ থেকে। তামিম আমার সবচেয়ে প্রিয় বন্ধুদের একজন। ও রেকর্ড করেছে, আমি তাতে সত্যিই গর্বিত।

সব ক্রিকেটারই চায়, তার রেকর্ড সবার ওপরে থাকুক। কিন্তু তামিম যেভাবে খেলেছে, অসাধারণ। ওর মানের একজন ব্যাটসম্যানের পাশে এই রেকর্ড খুব মানায়। সত্যি বলতে, ওর দুইশর পর থেকেই মনে হচ্ছিল, তিনশ কেন, আরও বেশি করতে পারে।’