বিশ্বকাপ ফাইনালে সাক্সেনা-সাকিব চরম উত্তে’জনা (ভি’ডিওসহ)

বিশ্বকাপের ফাইনাল। উত্তেজনার কমতি নেই। তারওপর প্রতিদ্ব’ন্দ্বী দুই প্রতিবেশী দেশ ভারত এবং বাংলাদেশ। দুদেশের ক্রিকেটীয় উত্তে’জনার পারদটা বিস্ফো’রিত হলো ফাইনালের দ্বিতীয় ওভারেই। পেসার তানজিম হাসান সাকিব ছিলেন বোলার। ওভারের দ্বিতীয় বলটি সোজাসুজি ড্রাইভ করেন ওপেনার সাক্সেনা। বল চলে আসে সরাসরি বোলার সাকিবের হাতে। বল ধরেই স্ট্রা’ইক প্রান্তের স্ট্যাম্প বরাবর থ্রো করেন সাকিব।

কিন্তু স্ট্যাম্পে না লেগে বল কিছুটা উপর দিয়ে সাক্সেনার শরীরে বাতাস দিয়ে চলে যায়।ক্ষি’প্ত হয়ে রুখে দাঁড়ান সাক্সেনা। কথার লড়াইয়ে জড়িয়ে পড়েন সাকিবও। পরিস্থিতি বেশি ঘোলাটে হওয়ার আগেই আম্পায়ার মধ্যস্থতা করতে চলে আসেন। সাকিবকে বুঝি-শুনিয়ে আবারো বল করতে পাঠান। এই ঘটনার পর সাক্সেনা অবশ্য বেশিদূর যেতে পারেননি।

অভিষেক দাসের শিকারে পরিণত হয়ে তিনি ফেরেন মাত্র ২ রানে। এরপর তার দলও বেশিদূর যেতে পারেনি। আগে ব্যাট করতে নেমে ৪৭.২ ওভারে ১৭৭ রানে অলআউট হয়েছে ভারত। টস জিতে আগে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্তটাকে আপাতত সঠিকই প্রমাণ করেছেন বাংলাদেশের বোলাররা। শক্তিশালী ভারতীয় ব্যাটিং অর্ডারকে বেশিদূর যেতে দেননি তারা, রেখেছেন নাগালের মধ্যে।

শুরু থেকেই ভারতের রানের চাকা চেপে ধরে টাইগাররা। দলীয় স্কোরে মাত্র ৯ রান যাগ হতেই ওপেনার ধিবইয়াশ সাক্সেনাকে ফেরান অভিষেক দাস। সেই চাপ সামলে উঠেন আরেক ওপেনার জয়শওয়াল এবং তিলক ভার্মা। ৩৮ রানে তিলককে ফেরান সাকিব। এরপর জুরেলের ২২ রান ছাড়া আর কেউই দুই অংশ ছুঁতে পারেননি। একপাশ আগলে লড়তে থাকা জয়শওয়াল সেঞ্চুরি থেকে মাত্র ১২ রান দূরে থাকতে বিদায় নেন।

৮৮ রানে শরিফুলের শিকার হয়ে তিনি ফিরে গেলে মুখ থুবড়ে পড়ে ভারত। বল হাতে ৩টি উইকেট তুলে নিয়েছেন অভিষেক দাস। এছাড়া ২টি করে উইকেট তুলে নিয়েছেন শরিফুল এবং সাকিব।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন