‘ভগবানের সম্পত্তি’ কাজে লাগানো হোক, মোদীকে প্রস্তাব কিশোরের

করোনার প্রকোপ কাটিয়ে উঠতে এ বার ‘ভগবানের সম্পত্তি’কে কাজে লাগানো হোক। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি লিখে এমনই আর্জি জানাল দশম শ্রেণির এক ছাত্র। তার দাবি, এই বিপদের দিনে মন্দির, মসজিদ, গির্জা, গুরুদ্বার নির্বিশেষে সমস্ত ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলিকে তাদের ৮০ শতাংশ সম্পত্তি দেশের স্বার্থে দান করতে বলা হোক।

নোভেল করোনা ভাইরা’সের প্রকোপে ভারতে এখনও পর্যন্ত ২৫ জন প্রা’ণ হারিয়েছেন। আক্রা’ন্তের সংখ্যা ১০০০ ছুঁইছুঁই। এমন পরিস্থিতিতে চরম বিপ’দে পড়েছেন দরিদ্র মানুষরা। লকডাউনের জেরে কাজ হারিয়েছেন হাজার হাজার পরিযায়ী শ্রমিক। দু’মুঠো ভাত জোগাড় করাও দুষ্ক’র হয়ে দাঁড়িয়েছে তাঁদের পক্ষে। এই অবস্থা থেকে রেহাই পেতে যে বাড়ি ফিরে যাবেন, সেই উপায়ও নেই।

ওই সমস্ত মানুষের পাশে দাঁড়াতে সোশ্যাল মিডিয়ায় কেন্দ্রকে আর্জি জানাচ্ছেন হাজার হাজার মানুষ। কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়ার ভরসায় বসে থাকেনি দেহরাদূনের বাসিন্দা, দশম শ্রেণির পড়ুয়া অভিনব কুমার শর্মা। বরং ই-মেলের মাধ্যমে সরাসরি প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি পাঠায় সে।

ওই চিঠিতে অভিনব লিখেছে, ‘‘দেশের ১৩০ কোটি মানুষ লকডাউন হয়ে রয়েছেন। কোভিড-১৯-এর কোনও ওষুধ এখনও পাওয়া যায়নি। এর জেরে দেশে অর্থনৈতিক জরুরি অবস্থা তৈরি হতে পারে। তেমন হলে ভিক্ষুক, শ্রমিকদের না খেতে পেয়ে মরতে হবে। ছোট ছোট ব্যবসা, কারখানা বন্ধও হয়ে যেতে পারে। সে ক্ষেত্রে বেকারত্বও বৃদ্ধি পাবে। সরকারি সাহায্যেও কুলনো যাবে না হয়ত। তাই আপনার কাছে অনুরোধ, সমস্ত ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে ‘ভগবানের সম্পত্তি’র ৮০ শতাংশ দেশের স্বার্থে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে দান করা বাধ্যতামূলক করা হোক।’’

অভিনবের মতে, ‘‘ওই টাকায় তাঁর ছেলেমেয়েদের জীবন বাঁচছে দেখে ভগবান নিশ্চয়ই খুশি হবেন। আর মানবতার উপর আমাদের বিশ্বাসও বাড়বে।’’ চিঠিটি প্রধানমন্ত্রীকে পাঠালেও তাতে সমস্ত ধর্মের ঈশ্বরকে ‘সিসি’ করেছে ওই কিশোর।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।