ভারতে আ’টকে পড়া ৫০০ বাংলাদেশিকে প্রতিদিনই দুই বেলা খাবার দিচ্ছেন ডা. দেবী শেঠী

করোনাভাই’রাসের কারণে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ভারতের ব্যাঙ্গালুরে চিকিৎসার জন্য গিয়ে আ’টকে পড়েছেন কয়েকশ বাংলাদেশি নাগরিক। এ সব বাংলাদেশিকে খাবার দিচ্ছেন দেশটির প্রখ্যাত চিকিৎসক ডা. দেবী শেঠী ও নারায়ণা হৃদয়ালয়া হাসপাতাল। প্রতিদিন ৫০০ জন বাংলাদেশিকে দু’বেলা খাবার দিচ্ছেন তিনি। জানা যায়, পুনের আদিত্য বিড়লা মেমোরিয়াল হাসপাতালের আন্তর্জাতিক বিভাগের এজিএম রানা ভট্টাচার্য এবং হিউম্যান রাইটস ওয়াচ কমিশনের ইন্টারন্যাশনাল কো-অর্ডিনেটর দীপক কুমার সাহার সহযোগিতায় সেখানে আট’কে পড়া রোগী ও তাদের স্বজনরা ডা. দেবী শেঠীর সঙ্গে দেখা করেন। সেখানে তারা আ’টকে পড়া বাংলাদেশিদের দুঃখ-দুর্দশার কথা জানান।

আট’কা পড়া বিজয় কুমার বিশ্বাস বলেন, ‘আমরা ডা. দেবী শেঠীকে আমাদের এই আ’টকে পড়া বাংলাদেশিদের দুঃখ-ক’ষ্টের কথা জানাতে স’ক্ষম হই। অতঃপর দেবী শেঠী তার হাসপাতালের আশপাশে আট’কে পড়া ৫০০ বাংলাদেশিকে দুপুর ও রাতের খাবারের দায়িত্ব নিয়েছেন এবং শুক্রবার (৩ এপ্রিল) থেকে আমরা প্রত্যেকে নিজ নিজ হোটেলে বসেই দু’বেলার খাবার পাচ্ছি। আরও কিছু বাংলাদেশি আছে যারা হোটেল মালিকদের আন্তরিকতা বা অ’জ্ঞতার কারণে তালিকাভুক্ত হয়নি। তাদের জন্যও অনুরোধ করা হয়েছে। আশা করি সমাধান হবে।’

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতি বছর প্রায় ১২ লাখেরও বেশি বাংলাদেশি ভারতে চিকিৎসার জন্য যান। এর বেশির ভাগই যান ভেলোরের ক্রিশ্চিয়ান মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হসপিটালে (সিএমসি) চিকিৎসা নিতে। ছাড়াও ব্যাঙ্গালুরু, চেন্নাই, মুম্বাই এবং নয়াদিল্লিতে প্রচুরসংখ্যক রো’গী যান। করোনাভাই’রাসের কারণে সেখানে কয়েক হাজার বাংলাদেশি আ’টকে পড়েছেন। এ নিয়ে জাগো নিউজ সিরিজ প্রতিবেদন করে। এরপর বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে তাদের ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নিলেও ভারতে লকডাউন চলায় সেটা সময়সাপেক্ষ বলে জানানো হয়।

উল্লেখ্য, বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনাভাই’রাসে বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ৮৮ জন আক্রা’ন্ত হয়েছেন। ৯ জন প্রা’ণ হারিয়েছেন। ভারতে এখন পর্যন্ত ৩ হাজার ৫৮৮ জন আ’ক্রান্ত হয়েছেন বিপরীতে ৯৯ জনের মৃ’ত্যু হয়েছে প্রাণঘাতী এ ভাই’রাসে। বিশ্বব্যাপী এখন পর্যন্ত ১২ লাখের বেশি মানুষ আ’ক্রান্ত হয়েছেন আর প্রাণ গেছে ৬৫ হাজার ৬০০ জনের। আর সুস্থ হয়েছেন ২ লাখ ৫৩ হাজার ৫৯৭ জন।

সূত্র: জাগো নিউজ২৪