ত্রাণের আশায় তিনদিন ধরে রাস্তায় বসে আছেন প্রতিব’ন্ধী নারী

বরিশালের আগৌলঝাড়া উপজেলার বাকাল ইউনিয়নের ফুল্লশ্রী গ্রামের দিনমজুর মিলন হালদারের ঘরে তিনদিন ধরে খাবার নেই। মিলন হালদারের রোজগারেই সংসার চলে। স্ত্রী গৌরী রানী হালদার শারীরিক প্রতিব’ন্ধী। তাদের দুই ছেলে এক মেয়ে। মেয়ে বিয়ে দেয়ার পরে দুই ছেলে লেখাপড়া করছে। কোনো দিন খাবার জোগাড় করার জন্য বাড়ি থেকে বের হতে হয়নি তাকে। সেই গৌরী রানী হালদার গত তিনদিন ধরে ত্রাণের জন্য হাঁটুর ওপর ভর করে বাড়ির সামনের রাস্তায় এসে বসে আছেন। কোথাও কিছু মেলে কি-না সেই আশায় তিনদিন ধরে বসে রয়েছেন রাস্তায়। শুনেছেন, অনেকেই সাহায্য নিয়ে এগিয়ে আসছেন। যদি কিছু পান, খেয়ে বাঁচতে পারবেন তারা।

অবশেষে তার ভাগ্যে ত্রাণ জুটল। গতকাল রোববার (০৫ এপ্রিল) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ওই পথ দিয়ে যাচ্ছিলেন আগৈলঝাড়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আফজাল হোসেন। এ সময় গৌরী রানী হালদারের করুণ কথা শুনে তার বাড়িতে গিয়ে ১০ কেজি চাল, দুই কেজি ডাল, দুই কেজি আটা, দুউ কেজি আলু ও একটি সাবান পৌঁছে দেন ওসি আফজাল হোসেন। গৌরী রানী হালদার জানান, তার স্বামী দিনমজুরের কাজ করেন। স্বামীর রোজগারে সংসার চলে। ১০-১২ দিন ধরে তার স্বামী কাজে বের হতে পারছেন না। এখন সংসার চলছে না তার। গত তিনদিন ঘরে খাবার নেই।

ছেলেদের সামনে দাঁড়াতে পারছেন না। বাধ্য হয়ে সড়কে বসে ছিলেন তিনি। শুনেছেন বিভিন্ন লোকজন সাহায্য নিয়ে আসছেন। যদি কিছু খাবার পান সে আশায় অপেক্ষা করেছেন। তখন ওসি এগিয়ে এসেছেন। তার কথা সব শুনে বাড়িতে খাবার পৌঁছে দিয়ে গেছেন ওসি। গৌরী রানী হালদার বলেন, ওসির দেয়া ত্রাণে কয়েকদিনের খাওয়া নিয়ে কোনো চিন্তা করতে হবে না। কিন্তু এই ত্রাণ শেষে আমরা কি করব তা ভাবছি। আগৈলঝাড়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আফজাল হোসেন বলেন, করোনাভাই’রাসের সংক্র’মণ ঠেকাতে মানুষের চলাচল সীমিত করা হয়েছে। প্রয়োজন ছাড়া মানুষকে ঘরের বাইরে বের হতে নিরুৎসা’হিত করা হচ্ছে।

কিন্তু সমাজের অসহায় মানুষের জন্য এটি খুবই বেদনাদায়ক। শ্রমজীবী মানুষগুলো যদি একদিন বসে থাকেন তাহলে খাদ্য জোগাড় করা ক’ষ্ট হয়ে যায়। এ অবস্থায় বরিশাল জেলা পুলিশের উদ্যোগে ১৩০০ কর্মহীন দুস্থ মানুষকে খাদ্য সহায়তা দেয়া হচ্ছে। এর অংশ হিসেবে আগৈলঝাড়ায় কর্মহীন ১০০ দুস্থ পরিবারের বাড়ি বাড়ি খাবার পৌঁছে দিচ্ছি। অসহায় মানুষদের পাশে থাকার চেষ্টা করছি আমরা। সামনের দিনগুলোতেও আমরা তাদের পাশে থাকব।

সূত্র: জাগোনিউজ২৪