জার্মানির অভিধানে যুক্ত হলো আরবি ভাষায় ‘ইনশাআল্লাহ’

জার্মান অভিধানে এবার যুক্ত হলো আরবি ভাষায় শব্দ ‘ইনশাআল্লাহ’। বিশ্বজুড়ে মুসলমানদের কাছে পবিত্র ও জনপ্রিয় এই শব্দটি, যার বাংলা অর্থ দাঁড়ায়– ‘আল্লাহ যদি ইচ্ছা করেন’। জানা যায়, এটি ১৮৮০ সাল থেকে জার্মান ভাষার অভিধান ডুডেন ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়ে আসছে। ‘আল্লাহর ইচ্ছায়’ এ শব্দটি মুসলিম বিশ্বের ভবিষ্যতের ঘটনা সম্পর্কিত একটি অভিব্যক্তি। -খবর ইয়েনি শাফাকের।

‘ইনশাআল্লাহ’ শব্দটি আরবিতে আল্লাহর কাছে কল্যাণকামী সাহায্য লাভের পরিভাষায়। এটির অর্থ হলো- যদি আল্লাহ চান। এ ‘ইনশাআল্লাহ’ শব্দটিই যুক্ত হয়েছে জার্মান ভাষায় রচিত অভিধান ‘ডুডেন’-এ। ডুডেন ওয়েবসাইটে গিয়ে ইংরেজিতে ‘Inshallah’ লিখে অনুসন্ধান করলে এভাবে জার্মান ভাষায় ‘inschallah’ লেখা আসে। আর শব্দটির অর্থ লেখা আছে এভাবে- ‘wenn Allah will’। এর অর্থ হয়- ‘আল্লাহ যদি চান।’

তবে ডুডেন অভিধানের মুদ্রিত সংস্করণে ইনশাল্লাহ শব্দটি ছাপা হবে কি-না; তা নিয়ে এখনও কর্তৃপক্ষ কোনো বিবৃতি দেয়নি। যে সব অর্থে মুসলমানরা শব্দটি ব্যবহার করেন— কোরআনের সুরা: কাহফ, আয়াত : ২৩-২৪ (প্রথম পর্ব) রয়েছে- ২৩. তুমি কখনও কোনো বিষয়ে এ কথা বল না যে, আমি এটি আগামীকাল করব ২৪. ‘ইনশাআল্লাহ’ কথাটি না বলে। যদি (কথাটি বলতে) ভুলে যাও, তবে (যখনই তোমার স্মরণে আসবে) তোমার রবকে স্মরণ কর এবং বল, সম্ভবত আমার রব আমাকে এর (গুহাবাসীর বিবরণ) চেয়ে সত্যের নিকটতর পথনির্দেশ করবেন।

এই দুটি আয়াতে রাসূল (সা.)-এর প্রতি বিশেষ নির্দেশনা বর্ণিত হয়েছে। আয়াতে ভবিষ্যৎসম্পর্কিত কোনো কাজ ‘ইনশাআল্লাহ’ না বলে করতে নিষেধ করা হয়েছে। যদিও প্রাথমিকভাবে এ নির্দেশনা মহানবী (সা.)-এর জন্য ছিল, কিন্তু এই নির্দেশনা সব মুসলমানের জন্য।

এদিকে জীবনের প্রতিটি কাজে মুমিন ব্যক্তি আল্লাহকে স্মরণ করবে, এমনটাই স্বাভাবিক। নিজের শক্তি-সামর্থ্য ও উপায়-উপকরণের ওপর নির্ভর না করে কেবল আল্লাহর ওপর তিনি নির্ভর করবেন। তাই মুমিন ভবিষ্যতে অনুষ্ঠেয় কাজে ‘ইনশাআল্লাহ’ বলে।