এমপি-মন্ত্রী হবার সুযোগ আসলে কী করবেন সাকিব?

সাকিব আল হাসান; বিশ্বের শ্রেষ্ঠ অলরাউন্ডার তিনি, বাংলাদেশের গৌরব। সম্প্রতি ক্রিকেট থেকে এমনিতেই যখন তিনি দূরে তখন করোনা এসে ক্রিকেটকেই দূরে ঠেলে দিলো এই নতুন বাস্তবতায়। লকডাউনের এই সময়ে ডয়েচে ভ্যালের এক সাক্ষাতকারে ক্রিকেট জীবনসহ নানা বিষয়ে তিনি কথা বলেছেন। সেই সাক্ষাৎকারেই সাকিব জানিয়েছেন সময় আসলে মন্ত্রী এমপি হবার বিষয়ে জানিয়েছেন আগ্রহের কথা।

মাশরাফীর সঙ্গে ড্রেসিংরুম শেয়ার করেছেন। দুজনের সম্পর্কটাও দারুণ। জাতীয় দলের অধিনায়কত্ব ছাড়লেও সংসদ সদস্যের মতো একটি গুরু দায়িত্ব সামলাচ্ছেন ম্যাশ। ভবিষ্যতে মাশরাফীর মতো এমপি হওয়া কিংবা মন্ত্রী হওয়ার ইচ্ছা আছে কিনা জানতে চাওয়া হয় সাকিব আল হাসনের কাছে। প্রশ্ন শুনে হেসে ফেলেন সাকিব। বলেন, এগুলো আসলে সব সময়ের উপর ছেড়ে দিতে হবে। ভবিষ্যৎ কি হবে সেটা বলা আসলে খুব কঠিন। করোনা ভাইরাসই একটা জিনিসের শিক্ষা আমাকে দিয়েছে যে, কালকে কি হবে কেউ জানে না। খুব দুরের বিষয়ে আমি ফোকাস করতে চাই না।

সাকিব বলেন, তবে সুযোগ আসলে আমি স্বাগত জানাবো, সত্যি কথা বলতে। খুব একটা ইয়ে করবো না। আবার যদি সুযোগ না আসে তাহলেও খুব একটা আফসোস করবো না।এরকম জনশ্রুতি চালু আছে যে, আপনিও ২০১৮ সালের নির্বাচনে লড়তে চেয়েছেন। ঘটনা কি ঠিক? আপনি কি আসলেই মনোনয়ন চেয়েছিলেন? জবাবে সাকিব বলেন, আসলে কিছু জিনিস গোপন থাকাই ভালো। কিছু বিষয় আছে যেটা কখনো প্রকাশ হওয়াই উচিৎ না।

আমি যদি কোনোদিন রাজনীতিতে আসি তখনও এটা আসবে না (প্রকাশ হবে না), আমি যদি কখনো রাজনীতিতে না আসি তখনও এটা আসবে না। শুধু রাজনীতি নয় আরো অনেক কিছুই খোলামেলা কথা বলেছেন সাকিব। এর ভেতরে ক্রিকেট ভাবনা পরিবার এবং আসন্ন বিশ্বকাপের মত বিষয়গুলোও গুরুত্ব পেয়েছে।

সূত্র: সময় নিউজ।