তামিম ইকবালের লাইভ শো’র দারুণ প্রশংসা করলেন বিরাট কোহলি

বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে তামিম ইকবাল এর লাইভ শো। দেশি-বিদেশি অনেক তারকা ক্রিকেটারদের নিয়ে এই লাইভ শো করেন তামিম ইকবাল। ইতিমধ্যেই বিদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে তামিম ইকবালের লাইভ শোতে যোগ দিয়েছেন ফাফ দু প্লেসিস রোহিত শর্মা এবং বিরাট কোহলির মতো বড় তারকা ক্রিকেটার।

তারই ধারাবাহিকতায় গত সোমবার রাতে তামিম ইকবালের অতিথি হয়ে তার আড্ডায় যোগ দিয়েছিলেন বর্তমান সময়ের সেরা ব্যাটসম্যান এবং ভারতের বর্তমান অধিনায়ক বিরাট কোহেলি। বিরাট কোহলির এই লাইভ অনুষ্ঠান নিয়ে ভক্তদের মধ্যে আগ্রহের কম ছিল না। সবাই অপেক্ষায় ছিলেন এই আড্ডার জন্য। তাইতো ভক্তদের হতাশ করেননি বিরাট কোহলি। নানা অজানা প্রশ্নের উত্তর দিয়েছেন তিনি। করোনা কালে এটিকে নিজের জীবনের সেরা আড্ডা হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন বিরাট কোহেলি।

তামিম ইকবালের আড্ডায় এসে এমনটাই বললেন তিনি। সেজন্যই কিনা বাংলাদেশের ওয়ানডে আধিনায়কের এমন আয়োজনকে ‘ক্রেজি’ আখ্যা দিয়ে শো শেষে ভিরাট বলেছেন, আজ থেকে ১০ বছর পর আমি বেঁচে থাকলে কেউ যদি আমায় প্রশ্ন করে করোনা কোয়ারেন্টাইনের সময়ে আপনি কী কী করে কাটিয়ে ছিলেন, আমি তখন তামিমের এই ক্রেজি আয়োজনটির কথা বলবো, সেই সাথে বলবো এই সময়টুকু ছিল আমার জীবনে কোনো অনুষ্ঠানে কাটানো সেরা সময়।

ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই দূর্দন্ত খেলতে থাকেন বিরাট কোহেলি। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২০০৯ সালের প্রথম ম্যাচের সেই ভিরাট কোহলি আর তিন বছর পরের ভিরাট কোহলির মধ্যে এতোটা পার্থক্য ছিল কেন? এমন প্রশ্নে কোহলির জবাব ছিল, এক ম্যাচ খেলে আমি দলের বাইরে চলে গিয়েছিলাম। তিন বছর দলে ফিরে শ্রীলঙ্কার সাথে সেঞ্চুরিটাই আমাকে বদলে দেয়।

আমার মাঝে বিশ্বাস জন্মে আমি অনেকদিন ভারতের হয়ে খেলতে পারবো। আর তার জন্য আমি মনস্থির করাটাকে খুবই গুরুত্ব দিয়েছিলাম বলেই হয়তো তিন নম্বরে আমি সফল। সামনে যত ভালো ক্রিকেটারই থাকুক না কেন, নিজের একাগ্রতাই এখানে মূল বলে মনে করেন বিরাট কোহলি। আমার যে কাজটি সহজ মনে করি তা হলো, আমি ক্রিজে যাবো, দলের জন খেলবো আর শেষ পর্যন্ত দলকে জেতানোর চেষ্টা করবো।

নিজের অনুশীলন নিয়েও চমকপ্রদ তথ্য দিয়েছেন ভিরাট কোহলি। নিজ দলের রঘু আর বাংলাদেশের মুশফিকের উদাহরণ টেনে বললেন, আমি ওদের মতো ঘণ্টার পর ঘণ্টা অনুশীলন করি না। সেটা হতে পারে ৮ মিনিট থেকে ২০ মিনিট। এ সময়টুকুতে আমি বুঝে যাই কেমন হলো আমার অনুশীলন।

৪/৫ বল ভালো খেললে আমার আত্মবিশ্বাস জাগে। আমি উঠে আসি। আর না হলে খানিকক্ষণ চেষ্টা করি, তবুও না হলে চলে আসি। কারণ পারফেকশন খুঁজতে গিয়ে আমি আমার আত্মবিশ্বাস হারাতে রাজি নই। ভিরাট কোহলি অবশ্য ফিটনেসকেই সাফল্যের মূল বলে মানেন।