‘এমন তাণ্ডব জীবনেও দেখিনি’

উপকূলীয় এলাকা হওয়ায় সাতক্ষীরায় চলছে ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের তাণ্ডব। বুধবার সন্ধ্যার পর থেকেই বাড়তে থাকে ঝড়ের গতিবেগ। এ যেন ১৯৮৮ সালের বন্যাকে হার মানিয়েছে ঘূর্ণিঝড় আম্ফান।এর আগে বিকেলে সাতক্ষীরার উপকূলে ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানে। বর্তমানে ঝড়ের গতিবেগ ঘণ্টায় ১১২ কিলোমিটার চলছে।শহরের আমতলা এলাকার বাসিন্দা অধ্যক্ষ মনিরুজ্জামান বলেন, ১৯৮৮ সালের বন্যাও এতটা তাণ্ডব চালায়নি যতটা চালাচ্ছে আম্ফান। এমন তাণ্ডব জীবনেও দেখিনি।

তিনি আরো বলেন, আম্ফানের তাণ্ডবে শহরে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন ও চারদিক অন্ধকার হয়ে গেছে। এছাড়া প্রচণ্ড ঝড়ে টিনের চাল সব উড়ে গেছে। কেউই বাইরে বের হতে পারছে না।শ্যামনগর উপজেলার বুড়িগোয়ালিনি ইউপি চেয়ারম্যান ভবতোষ কুমার মণ্ডল বলেন, সন্ধ্যা থেকে প্রচুর ঝড়-বৃষ্টি ও জলোচ্ছ্বাস হচ্ছে। এছাড়া নদীর বাঁধ ভেঙে এলাকায় পানি ঢুকছে।

আশাশুনি উপজেলার শ্রীউলা ইউপি চেয়ারম্যান আবু হেনা শাকিল বলেন, এরইমধ্যে আম্ফানের তাণ্ডবে শতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। এছাড়া এখানকার অনেকের টিনের চাল উড়ে গেছে।সাতক্ষীরা আবহাওয়া অধিদফতরের কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) জুলফিকার আলী বলেন, সাতক্ষীরা শহরে ঝড়ের গতিবেগ চলছে ঘণ্টায় ১১২ কিলোমিটার। এটি আরো বাড়বে। এভাবে এক ঘণ্টা চলবে। সর্বোচ্চ ১৮০-২০০ কিলোমিটার গতিবেগে আঘাত হানার সম্ভাবনা রয়েছে।

তথ্য সূত্র : ডেইলি বাংলাদেশ