এখন আরও শক্তিশালী হচ্ছে করোনাভাই’রাস : দাবি ফ্লোরিডার গবেষকদের

প্রাথমিক পর্যায়ে করোনাভাই’রাসের (কোভিড-১৯) যে আকার বা চরিত্র ছিল, তার পরিবর্তন ঘটছে। ফ্লোরিডার গবেষকরা জানিয়েছেন, প্রতিনিয়ত শক্তিশালী হচ্ছে করোনাভাই’রাস। গবেষকদের মতে, চীনে যখন প্রথম করোনাভাই’রাস ছড়িয়ে পড়ে, তখন যে পরিমাণে মানুষ আক্রা’ন্ত হচ্ছিলেন, এখন অনেক দ্রুত ছড়াচ্ছে এই ভাই’রাস।

এর কারণ হিসেবে গবেষকরা বলছেন, করোনাভাই’রাস আরও শক্তিশালী হচ্ছে। দ্রুত মানবশরীরে প্রবেশের ক্ষমতা ধারণ করেছে। ফলে সংক্র’মণও বাড়ছে। এই ভাই’রাস নিজের সারফেস প্রোটিন বদলাচ্ছে বলে তথ্য পাওয়া গেছে। এ কারণে বদলে যাচ্ছে করোনা চরিত্র। যে মানব কোষে আগে করোনা জায়গা করতে পারত না, এখন সারফেস প্রোটিন বদলানোর ফলে সেখানেও হা’মলা চালাতে পারছে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।

চিকিৎসকরা বলছেন, রোগীর মধ্যে করোনার কোনো লক্ষণ না পাওয়া গেলেও হঠাৎই শারী’রিক পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে তার। চিকিৎসার শুরুর আগেই মৃ’ত্যু হচ্ছে রোগীর। মেডিকেল রিপোর্টের তথ্যমতে, যদি কোনো ব্যক্তির থেকে অন্তত ২০০ জন করোনা আক্রা’ন্ত হন, তবে তার এই ভাবে মৃ’ত্যু হতে পারে। মেডিকেল পরিভাষায় এই ব্যক্তিকে বলা হচ্ছে সুপার স্প্রেডার।

ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের পূর্ব গোদাবরী জেলার পেডাপুডি ও সংল’গ্ন এলাকায় এ রকম এক ব্যক্তির সন্ধান পাওয়া যায় সম্প্রতি। যার নিজের কোনো করোনার লক্ষণ ছিল না। অথচ তিনি সুপার স্প্রেডার ছিলেন। স্থানীয় কাঁকিনাড়ার একটি হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পর আধাঘণ্টার মধ্যে তার মৃ’ত্যু হয়।

গবেষকরা বলছেন, এ ধরনের অ্যাসিম্পোট্যোম্যাটিক রোগীরা প্রাথমিকভাবে সুস্থ বলেই মনে করা হয়। কিন্তু ধীরে ধীরে শরীরের ভেতরে বিভিন্ন অংশের ক্ষ’তিসাধন করে চলে। আচমকাই এদের র’ক্তে অক্সিজেনের পরিমাণ কমে যায়। এর ফলে চিকিৎসার বিন্দুমাত্র সুযোগও এই ধরনের রোগীরা দেন না। ফলে তারা মা’রা যান।

গবেষকরা করোনার এই চরিত্র বদলকে বলছেন D614G। বিশ্বজুড়ে মৃ’ত্যুর হার কমলেও ভ’য়াবহতা একই থাকছে করোনাভাই’রাসের। আপাতত গবেষকরা এই নতুন D614G-র চরিত্র রহস্য উদঘাটনে ব্যস্ত সময় পার করছেন। ইউরোপ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে একাধিক নমুনাও এজন্য সংগ্রহ করা হয়েছে।

সূত্র : ওয়াশিংটন পোস্ট