৪ মাস পর অবশেষে মাঠে ফিরছে ক্রিকেট

ক্রিকেটপ্রেমীদের জন্য সুখবর। প্রায় ৪ মাসের প্রতীক্ষা শেষে মাঠে ফিরছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট। করোনা সংক’ট অতিক্রম করে ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ টেস্ট সিরিজ শুরু হচ্ছে বুধবার। সাউদাম্পটনে প্রথম টেস্ট মাঠে গড়াবে বাংলাদেশ সময় বিকেল ৪টায়। করোনার কারণে ক্রিকেটে সংযোজন হয়েছে নতুন কিছু নিয়ম। স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করে খেলা আয়োজন হবে ক্লোজ ডোরে।

ব্রাথওয়েটের অতিমানবীয় ছক্কায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জয়, কিংবা স্টোকসের অনন্য নিবেদনে ২০১৯ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের শিরোপা উল্লাস, এসব হাইলাইটস নিশ্চয়ই এতোদিন কাতর করেছে ক্রিকেট ভক্তদের। ১৩ মার্চ অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড ম্যাচের পর থেকে যে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আর মাঠে গড়ায়নি। গৌরবময় অনিশ্চয়তার খেলাটি মিস করেছেন এর শত কোটি সমর্থক।

তবে অপেক্ষার অবসান ঘটতে চলেছে। সাউদাম্পটনে ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের মধ্য দিয়ে ক্রিকেটের প্রত্যাবর্তন হচ্ছে। নতুন আরম্ভে সুরক্ষা ভাবনায় নতুন সব নিয়ম যুক্ত হচ্ছে। বলে শাইনিংয়ে লালা বা অন্য কিছু ব্যবহার করা যাবে না। কেবলই ঘাম ব্যবহার করা যাবে। ভুলক্রমে লালা ব্যবহার করলে সর্বোচ্চ দুবার সতর্ক করা হবে। এরপর শাস্তি হিসেবে ৫ রানের পেনাল্টি।

করোনায় যাতায়াত ঝুঁ’কি থাকায় নিউট্রাল আম্পায়ার থাকছে না। স্থানীয় আম্পায়াররাই খেলা পরিচালনা করবে। এ অবস্থায় রিভিউ সংখ্যা বেড়ে ৩টি হয়ে যাচ্ছে। কোভিড নাইন্টিন সাবস্টিটিউট যোগ হচ্ছে। কেউ রোগাক্রান্ত হলে তার বিকল্প ক্রিকেটার নেয়া যাবে ম্যাচ রেফারির অনুমতি নিয়ে। আর অসুস্থ ক্রিকেটারকে অতিস’ত্ত্বর করোনা টেস্টে পাঠানো হবে।

ক্রিকেটারদের মাঝে শারী’রিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। উদযাপনেও সেটা প্রযোজ্য। সানগ্লাস, ক্যাপ বা ক্রিকেটারের অন্য কিছু আম্পায়ার রাখবেন না। নিয়মিত স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে। বিশেষ করে বল ধরার পর।

ওয়ার্ম আপ ম্যাচে নতুন নিয়মের চর্চা করেছে ইংল্যান্ড-উইন্ডিজ দুই দলই। এখন মূল লড়াইয়ে সঠিক প্রয়োগের অপেক্ষা। ক্লোজ ডোর ম্যাচে ক্রিকেটারদের অনুপ্রাণিত করতে প্রযুক্তির মাধ্যমে কৃত্তিম উল্লাসের আওয়াজ ব্যবহার করা হবে। দীর্ঘদিন পর মাঠে ক্রিকেট ফেরায় অবদান ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের। এই দুই বোর্ড থেকে প্রেরণা নিয়ে বাকিরাও পর্যাপ্ত প্রস্তুতি নিয়ে ক্রিকেট শুরু করবে এটাই প্রত্যাশা।

এ বিষয়ে ইংল্যান্ড দলের সাবেক অধিনায়ক নাসের হুসেইন বলেন, ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ধন্যবাদ। করোনা পরবর্তী সময়ে ক্রিকেট শুরুর জন্য উইন্ডিজ বোর্ডের সাহসিকতার প্রশংসা করতেই হয়। এটা অন্যদের জন্যও উদাহরণ তৈরি করবে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাবেক ক্রিকেটার ইয়ান বিশপ বলেন, ক্রিকেট ফেরায় ইংল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ড অগ্রণী ভূমিকা রেখেছে। উইন্ডিজ দল লড়াইয়ের জন্য মুখিয়ে আছে। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ক্যারিবীয়দের সবশেষ টেস্ট সিরিজে জয়ের রেকর্ড আছে। তবে ইংল্যান্ডের মাটিতে লড়াই বরাবরই কঠিন। পেসাররা আস্থার মূলে, ব্যাটিং নিয়েই দুশ্চিন্তা। ব্যাটসম্যানরা জ্বলে উঠলে ফলাফল উইন্ডিজের পক্ষে আসতে পারে।

জর্জ ফ্লয়েড হত্যার পর থেকে ক্রীড়াঙ্গন সরব সংহতি প্রকাশে। ব্ল্যাক লাইভ ম্যাটারস মুভমেন্টে ক্রিকেটাররাও যুক্ত হচ্ছেন। করোনা পরবর্তী প্রথম ম্যাচেই ব’র্ণবাদের বি’রুদ্ধে প্রতি’বাদ জানাবে দুদল।