রিজেন্ট চেয়ারম্যানের যতো অপক’র্ম

বেরিয়ে আসছে রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহেদের জালিয়াতির চাঞ্চল্যকর সব তথ্য। নানা নামে, নানা পরিচয়ে নিজেকে জাহির করে বিভিন্ন সময়ে হাতিয়ে নিয়েছেন অর্থ, কয়েক বছরেই বনে গেছেন কোটি কোটি টাকার মালিক। তার বিরু’দ্ধে রাজধানীতেই রয়েছে ৩২টি মামলা। মোহাম্মদ শাহেদ নামেই পরিচিতি। আসল নাম শাহেদ করিম। রিজেন্ট গ্রুপের চেয়ারম্যান তিনি।

সাতক্ষীরার এক নিম্নবিত্ত পরিবারের সন্তান শাহেদ কয়েক বছরেই হয়েছেন কোটি কোটি টাকার মালিক। ২০১১ সালে ধানমন্ডিতে এমএলএম ব্যবসা করে গ্রাহকদের ৫০০ কোটি টাকা আত্ম’সাৎ করেন। তখন লোকে তাকে চিনতো মেজর ইফতেখার করিম নামে।কখনো মেজর, কখনো সচিব. ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের প্রধানমন্ত্রীর এপিএস হিসেবেও নিজের পরিচয় দিয়েছেন।

মার্কেন্টাইল কো-অপারেটিভ থেকে ৬ কোটি টাকা ঋণ নেয়ার নথিতে নিজেকে অবসরপ্রাপ্ত কর্ণেল হিসেবে জাহির করেন। এ বিষয়ে আ’দালতে ২টি মা’মলা চলছে এখনো। শাহেদের বিরু’দ্ধে ধানমন্ডি থা’নায় ২টি, বরিশালে ১টি, উত্তরা থা’নায় ৮টি মা’মলাসহ রাজধানীতে ৩২টি মা’মলা রয়েছে। ২০০৯ সালের জুলাই মাসে প্রতা’রণার মা’মলায় তাকে একবার গ্রে’ফতারও করা হয়েছিলো।

আই’নশৃঙ্খলা বাহিনী বলছে, প্রতারণা ও অর্থ আত্ম’সাতের অভিযোগে শাহেদসহ ১৫ জনের বিরু’দ্ধে মা’মলা প্রক্রিয়াধীন। প্রশাসন জানায়, অভিযোগের ভিত্তিতে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছিল। বেরিয়ে এসেছে কী পরিমাণ অনিয়ম এখানে হয়েছে। এছাড়াও তার বিরু’দ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অনুসন্ধান চলছে।

সোমবার রাজধানীর উত্তরা এবং মিরপুরে শাহেদের মালিকানাধীন রিজেন্ট হাসপাতালে অভিযান চালায় র‌্যাব। উঠে আসে অনিয়ম ও প্রতা’রণার নানা চিত্র।

সূত্র: সময় নিউজ।