নাকে স্প্রে করলেই জব্দ হবে করোনা!

বৈশ্বিক মহামা’রি করোনাভা’ইরাস কীভাবে নিয়ন্ত্রণে আনা যায় এই নিয়েই গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছেন সারা বিশ্বের বিজ্ঞানীরা। এরই মাঝে এক নতুন দিশার সন্ধান দিলেন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের এক অধ্যাপক। তিনি জানালেন, নাকে স্প্রে করলেই জব্দ হবে করোনা।

হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ডেভিড এডওয়ার্ডসের দাবি, সেপ্টেম্বরের মধ্যে তিনি এবং তাঁর সহযোগীরা এমন একটি ‘নেজ়াল স্প্রে’ বাজারে আনতে চলেছেন যা নাকে স্প্রে করলেই জব্দ হবে এই মারণ ভাইরাস কোভিড-১৯।

তিনি আরও জানান, এই ওষুধটিতে কোনও রকম রাসায়নিকের ব্যবহার হয়নি, শুধু সমুদ্রের পানিতে পাওয়া যায় এমন প্রাকৃতিক লবণাক্ত উপাদান দিয়েই তৈরি হয়েছে এই ‘ফর্মুলা’। যা প্রায় ১০০ শতাংশের কাছাকাছি সংক্র’মণ রোধে সক্ষম বলেই দাবি তাঁর।

সার্স-কোভ-২ ভাইরাসের ডিএনএ-এর উপর গবেষণা চালিয়ে এই স্প্রে তৈরির দিকে এগিয়েছে স্টার্টআপ সংস্থা ‘সেন্সরি ক্লাউড’। এই সংস্থার ‘ফেন্ড’ নামের ওষুধটি নাকে স্প্রে করলে শ্বা’সনালীর মাধ্যমে তা সরাসরি ফুসফুসে প্রবেশ করে সংক্র’মণের বি’রুদ্ধে লড়াই চালাবে বলে জানিয়েছেন অধ্যাপক ডেভিড এডওয়ার্ডস।

চিকিৎসক এবং স্বাস্থ্যকর্মীদের মতো যারা করোনা সংক্র’মণের বিরু’দ্ধে লড়াইয়ের সামনের সারিতে রয়েছেন, তাদের জন্য পিপিই-মাস্কের সঙ্গে এই বিশেষ ‘নেজ়াল স্প্রে’টির ব্যবহার বিশেষ কার্যকরী হতে চলেছে বলেই মত এডওয়ার্ডসের।

গত মঙ্গলবার একটি মেডিক্যাল জার্নালে গবেষণাটি প্রকাশ করা হয়েছে। সেখানে সেন্সরি ক্লাউডের পক্ষ থেকে নিঃশ্বা’সের মাধ্যমে এই ‘মিস্ট’ জাতীয় স্প্রেটি ফুস’ফুসে প্রবেশ করার পর ঠিক কী ভাবে কাজ করে তার বিস্তারিত বর্ণনা করা হয়।

মোট ১০ জনের উপর স্প্রেটি পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন গবেষকেরা। এই দশ জনের মধ্যে পাঁচ জনের বয়স ৬৫ বছরের বেশি। বাকি পাঁচ জন দশের নীচে।

আগামী দুই এক মাসের মধ্যে ক্রেতারা তাদের অনলাইন সাইটের মাধ্যমে ওষুধটি কিনতে পারবেন বলে জানিয়েছে প্রস্তুতকারক সংস্থাটি। পাশাপাশি বিশ্ব জুড়ে সামনের সারিতে থাকা করোনা-যো’দ্ধাদের কাছেও এই ওষুধ পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা চালানো হবে বলে জানিয়েছে এডওয়ার্ডসের সংস্থা।

সূত্র : আনন্দবাজার