মুশফিক ভাইয়ের কাছ থেকে অনেক কিছু শিখছি : আফিফ

করোনায় ঘর বন্দী হয়ে পড়েছে ক্রিকেটাররা। এই মুহূর্তে ঘরের বাইরে একসাথে অনুশীলন করতে পারছে না ক্রিকেটাররা। তবে ক্রিকেটারদের জন্য নতুন কিছু উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। মাঝেমধ্যেই বাংলাদেশ জাতীয় দলের প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো সহ অন্য কোচিং স্টাফদের সাথে ভার্চুয়াল ডিসকাশন করছেন জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা। ভার্চুয়াল ডিসকাশনে তরুণ ক্রিকেটারদের সাথে নিজেদের অভিজ্ঞতার কথা শেয়ার করছে সিনিয়র ক্রিকেটাররা।

বিভিন্ন গ্রুপে ভাগ হয়ে চলে সেই মিটিং। কোচ রাসেল ডমিঙ্গোসহ অন‌্যান‌্যদের সঙ্গে মিটিং করে সুফল পাচ্ছেন টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হক। তিনি বলেছেন, ‘আমরা প্রত্যেকেই যত দ্রুত সম্ভব মাঠে ফিরতে চাই। ক্রিকেটার হিসেবে ট্রেনিং এবং খেলতে না পারা চরম বিরক্তিকর। এজন‌্য এ ধরণের মিটিং খুব গুরুত্বপূর্ণ। এতে মনোযোগ ধরে রাখা এবং ক্রিকেটের সংস্পর্শে থাকা যায়।’

মিটিংয়ের উপকারিতা তুলে ধরে মুমিনুল বলেছেন, ‘মিটিংয়ে মানসিক শক্তি এবং পরিকল্পনা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আমাদের সাম্প্রতিক টেস্ট পারফরম‌্যান্স বিশ্লেষণ করা হয়েছে এবং আমরা কী শিখতে পেরেছি সেগুলো নিয়ে আলোচনা হয়েছে।’

‘আমি মনে করি প্রত্যেকে এখন নিজেকে অনেক সময় দিতে পারছে এবং নিজের খেলা নিয়ে পরিষ্কার ধারণা পাচ্ছে। একই সাথে কী করতে হবে, কী করা উচিত হবে না সেগুলোও বুঝতে পারছে। সকল খেলোয়াড়, সিনিয়র থেকে শুরু করে দলে যারা নতুন আছে তারা প্রত্যেকে মিটিংয়ে অংশ নিচ্ছে এবং নিজেদের মনোভাব, পরিকল্পনা জানাচ্ছে। কোচ এবং আমরা যারা সতীর্থ সবাই তা শুনছি।’ – যোগ করেন মুমিনুল।

মুমিনুলের সঙ্গে সুর মিলিয়েছেন জাতীয় দলের স্পিন অলরাউন্ডার আফিফ হোসেন ধ্রুব, ‘সেদিন মুশফিকুর রহিম ভাই খেলোয়াড়দের দায়িত্ব নিয়ে কথা বলছেন। সিনিয়র ক্রিকেটাররা আমাদের থেকে কী প্রত‌্যাশা করছেন এবং দলকে এগিয়ে নিতে আমরা কী চিন্তা করি সেগুলো নিয়ে কথা বলেছেন। পাশাপাশি ভিডিও অ‌্যানালাইস করায় আমরা খুব উপকার পাচ্ছি।’

এ অলরাউন্ডার বলেন, ‘মুশফিক ভাইয়ের মত অভিজ্ঞরা আমাদের তরুণদের সামনে এগিয়ে যাবার এবং দায়িত্ব ও কর্তব্যবোধ সম্পর্কে সচেতন করে বক্তব্য দিয়েছেন। তিনি আমাদের কিভাবে এগিয়ে যেতে হবে এবং দায়িত্ব ও কর্তব্যবোধটা আসলে কি? সে ধারণা ও পরামর্শও দিয়েছেন।’

এ ছাড়া ভিডিও এবং কম্পিউটার অ্যানালিস্ট গ্রুপ ডিসকাশনে ক্রিকেটারদের বিভিন্ন ম্যাচের ভিডিও ক্লিপ্স দেখিয়েছেন এবং সেগুলো নিয়ে অলোচনা-পর্যালোচনাও হয়েছে। আফিফ হোসেন ধ্রুব’র মতে, সেটাও খুব শিক্ষনীয় এবং সেখান থেকে তারা অনেক কিছু শিখেছেন। জেনেছেন। বুঝেছেন।