মানুষের কল্যাণে দান করে দিলেন পুরস্কার পাওয়া ৯ কোটি ৭০ লাখ টাকা

পতুর্গালের একটি মানবাধিকার সংগঠনের কাছ থেকে সম্প্রতি এক মিলিয়ন ইউরো সমমূল্যের পুরস্কার জিতেছেন জলবায়ু আ’ন্দোলনের প্রতীক হয়ে ওঠা সুইডিশ কিশোরী গ্রেটা থানবার্গ। বাংলাদেশি মুদ্রায় এ পুরস্কারের অর্থমূল্য দাঁড়ায় প্রায় ৯ কোটি ৭০ লাখ টাকা। গ্রেটার এযাবৎকালে পাওয়া সবচেয়ে বড় অংকের পুরস্কার এটি। কিন্তু এই বিপুল অর্থ নিজের জন্য না রেখে মানুষের কল্যাণে দান করে দিয়েছেন তিনি।

সোমবার অনলাইনে এক ভিডিওবার্তার গ্রেটা থানবার্গ বলেছেন, ‘আমি যা ক’ল্পনা করতে পারি এটি তার চেয়েও বেশি অর্থ। এ পুরস্কারের পুরো অর্থ আমার ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে বিভিন্ন সংস্থা ও প্রকল্পগুলোতে দান করা হবে, যারা জলবায়ু সং’কট এবং পরিবেশগত সংকটে ক্ষতিগ্রস্ত লোকদের সাহায্যে কাজ করছে।’

জানা যায়, সম্প্রতি পতুর্গালের গুলবেনকিয়ান পুরস্কারে ভূষিত হয়েছেন গ্রেটা থানবার্গ। পুরস্কার বিষয়ক জুরি কমিটির প্রধান জর্গে সাম্পায়ো জানিয়েছেন, জলবায়ু পরিবর্তনে বিরুদ্ধে দৃঢ় সংগ্রাম ও এ কাজে গ্রেটা যেভাবে তরুণ প্রজন্মকে একত্রিত করেছেন, তার জন্য তাকে এ পুরস্কার দেয়া হয়েছে।

গ্রেটা থানবার্গ জানিয়েছেন, পুরস্কারের এক লাখ ইউরো যাবে ব্রাজিলের ফ্রাইডেস ফর ফিউচারের কাছে। এ গ্রুপটি অ্যামাজন অঞ্চলে করোনাভাইরাসের বিস্তার রো’ধে কাজ করছে। আরও এক লাখ ইউরো পাবে স্টপ ইকোসাইড ফাউন্ডেশন। এ সংগঠনটি পরিবেশ বিনষ্টকে আন্তর্জাতিক অ’পরাধ ঘোষণার দাবিতে কাজ করছে। এর আগে, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের শীর্ষ মানবাধিকার পুরস্কার, সুইডিশ রাইট লাইভলিহুড পুরস্কার জিতেছেন ১৭ বছরের এ কিশোরী।

গত বৃহস্পতিবার গ্রেটা এবং আরও তিন জলবায়ু আন্দোলকারী ইউরোপীয় নেতাদের উদ্দেশে জলবায়ুর জরুরি সং’কট বিষয়ে একটি খোলা চিঠি লিখেছেন। ওই চিঠিতে স্বাক্ষর করেছেন অন্তত ১৫০ তারকা ও বিজ্ঞানী। সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান