বিসিবি’কে বিজয়ের ধন্যবাদ

নভেল করোনাভাই’রাসের দাপটে চার মাসেরও বেশি সময় ঘরবন্দি থাকতে হয়েছে এনামুল হক বিজয়কে। তবে সম্প্রতি বিসিবি’র ব্যবস্থাপনায় মিরপুর শের-ই-বাংলাসহ দেশের আরো তিন ভেন্যুতে অনুশীলন ফেরায় এখন তিনিসহ মোট ১২ ক্রিকেটার আউটডোর অনুশীলনে ঘাম ঝরাতে পারছেন। মহামারিকালে এই অনুশীলনের ব্যবস্থা করে দেওয়ায় অভিভাবক সংস্থা বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড-বিসিবি’কে ধন্যবাদ জানালেন জাতীয় দলে নিয়মিত হওয়ার চেষ্টায় থাকা ওপেনার এনামুল হক বিজয়।

করোনার অতিমা’রির সময়টা ঘরে বসেই কেটেছে বিজয়ের। করোনার প্রা’দুর্ভাবে অনির্দিষ্টকালের জন্য দেশের ক্রিকেট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় খেলা তো দূরে থাক প্রিয় ভেন্যু মিরপুর শের-ই-বাংলায় গিয়ে অনুশীলনটিও করতে পারেননি লাল সবুজের হয়ে এক সময়ে ঝড় তোলা এই ব্যাটসম্যান। অগত্যা ঘরে বসেই ফিটনেস অনুশীলন সেরেছেন। কিন্তু ১৯ জুলাই থেকে বিসিবি’র ব্যবস্থাপনার হোম অব ক্রিকেট মিরপুরে ব্যক্তিগত অনুশীলন ফেরায় এখন তিনি উন্মুক্ত মাঠেও ঘাম ঝরাতে পারছেন।

দীর্ঘ বিরতির পর অনুশীলনে ফিরতে পেরে তার ভীষণ ভীষণ ভালো লাগছে। আর এর সবই সম্ভব হয়েছে বিসিবি’র কল্যাণে। তাই অভিভাবক সংস্থাকে জানালেন আন্তরিক ধন্যবাদ। ‘আজকে মিরপুরে অনুশীলন করতে পেরে খুব ভালো লাগছে। প্রায় চার মাস পরে মিরপুরে অনুশীলনের সুযোগ পেলাম। বিসিবি’কে অনেক অনেক ধন্যবাদ এটা করে দেওয়ার জন্য। আশা করি এটা অব্যহত থাকবে।’ সোমবার (২৭ জুলাই) প্রিয় ভেন্যু মিরপুর শের-ই-বাংলায় নিজের প্রথম দিনের ব্যক্তিগত অনুশীলন শেষে একথা বলেন বিজয়।

ঢাকাস্থ চার ক্রিকেটারের আগ্রহের প্রেক্ষিতে ১৯ জুলাই থেকে শের-ই-বাংলায় শুরু হয়েছে প্রথম পর্বের এক সপ্তাহের ব্যক্তিগত অনুশীলন। এর ঠিক দুই দিন বাদে আরো দুই ক্রিকেটার যুক্ত হলে তাদের নিয়ে ২৬ জুলাই পর্যন্ত তা চলেছে। প্রথম পর্বের অবশ্য এখানেই শেষ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু শেষতক এর মেয়াদ আরও দুই দিন বাড়িয়েছে টাইগার ক্রিকেট প্রশাসন। নতুন সূচিতে বেড়েছে ক্রিকেটারের সংখ্যাও, যুক্ত হয়েছেন এনামুল হক বিজয়। ফলে ঢাকাস্থ মোট ক্রিকেটারের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল সাত-এ।

চার মাস পরে অনুশীলনে নেমে শুরুটা দুর্বধ্যই মনে হয়েছে বিজয়ের। যেহেতু লম্বা সময়ের পরে মাঠে ফেরা তাই জড়তা কাটাতে বেশ বেগ পেতে হয়েছে। অবশ্য তাতে কোনো আক্ষেপ বা অভিযোগ তার নেই। বরং প্রিয় ভেন্যুতে ফেরার তুষ্টিই তার কণ্ঠে ঝরল। ‘অনুশীলন করেছি, বলতে গেলে অনেক কষ্টই হয়েছে আজকে। কারণ আমরা ইনডোরে করি বা বাইরে যেখানেই করি মাঠের অনুশীলনটা, মিরপুরের অনুশীলন আসল ও বিশেষ কিছু। তো কষ্ট হয়েছে অনেকদিন পরে। তো আশা করি এভাবেই চালিয়ে যাব। ঈদের আগে যতটুকু করতে পারি। ঈদের পরে তো করেতেই থাকব।’

বিসিবি’র নতুন সূচি অনুযায়ী ঢাকাস্থ ক্রিকেটারদের মধ্যে সোমবার (২৭ জুলাই) হোম অব ক্রিকেট মিরপুর শের-ই-বাংলায় অনুশীলন সেরেছেন ইমরুল কায়েস ও এনামুল হক বিজয়। আর মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) ব্যক্তিগত অনুশীলনে ঘাম ঝরানোর কথা রয়েছে; মুশফিকুর রহিম, ইমরুল কায়েস ও এনামুল হক বিজয়। মোহাম্মদ মিঠুন, তাসকিন আহমেদকে এই দুই দিন অনুশীলনে দেখা যাবে না। শফিউল ইসলাম অবশ্য শনিবার (২৫ জুলাই) নিজ জেলা বগুড়ায় ফিরে গেছেন।

এনামুল বিজয়ে আগে মুশফিকুর রহিম, শফিউল ইসলাম, ইমরুল কায়েস, মোহাম্মদ মিঠুন, তাসকিন আহমেদ ও মেহেদী হাসান রানাকে নিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে ঢাকার প্রথম পর্বের এক সপ্তাহের ব্যক্তিগত অনুশীলন।-সারা বাংলা।