বন্যায় সব ভেসে গেছে, গাছটাই তার শেষ আশ্রয়

বন্যায় ডুবে গেছে ঘরবাড়ি। ঘরের ভেতরে থাকা জিনিসপত্রের কোনো হদিশ নেই। কয়েকটা হাঁস পালতেন, সেগুলোও ভেসে গেছে। শুকনো মাটিতে কবে পা স্পর্শ করেছেন, তাও মনে নেই! ভরসা এখন ঘরের সামনের ছোট আম গাছটাই। সেটাতেই দিন-রাত কাটছে এই নারীর। সম্প্রতি ছবিটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে। জানা গেছে, এক মাস ধরে বন্যায় ভাসছে বগুড়ার সারিয়াকান্দি উপজেলা। ছবিটি সেখানকার।

পানি কখনো বাড়ছে, কখনো কমছে। কখনো পানি বেড়ে ডুবে যাচ্ছে মানুষের মাথা গোঁজার ঠাঁই। সামান্য যে উঁচু জায়গাটুকু পানি ছুঁতে পারেনি, সেখানে কোনোমতে গবাদিপশু রেখে নিজেরা আশ্রয় নিয়েছেন নৌকায়। আবার অনেক বন্যার্ত বহু মানুষের ভরসা কলার ভেলা। যোগাযোগ-রান্নাবান্না, থাকা খাওয়া সবকিছুই তারা সারছেন কলার ভেলার উপর। তবে পর্যাপ্ত কলাগাছ না থাকায় ভেলাও তৈরি করতে পারছেন না অনেকেই।

কিন্তু যাদের নৌকা নেই তারা হয়তো ঘরের ছালে বা গাছের ডালে বসে দিন গুনছেন।সারিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাসেল মিয়া জানান, সারিয়াকান্দি উপজেলার ১২ ইউনিয়নের মধ্যে ৯টি ইউনিয়নই বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ। বগুড়ায় বেড়েই চলছে যমুনার পানি। একইসঙ্গে দু’র্ভোগ বেড়েছে চরাঞ্চলের হাজার হাজার মানুষের।

দ্বিতীয় দফার বন্যায় বগুড়ার সারিয়াকান্দি সোনাতলা ও ধুনটের ১৬ ইউনিয়নের লাখেরও মানুষ পানিবন্দি রয়েছে। খাবার, বিশুদ্ধ পানি, পয়ঃনিষ্কাশন নিয়ে বিপাকে পানিবন্দি এসব মানুষ।-ডেইলি বাংলাদেশ