তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘ’র্ষে আ’হত অর্ধশত

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলার পত্তন ইউনিয়নের মনিপুর গ্রামে দুই পক্ষের সংঘ’র্ষে অর্ধশতাধিক লোক আ’হত হয়েছেন। শনিবার (০৮ আগস্ট) বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। সংঘ’র্ষের ঘটনায় আ’হত অন্তত ৪০ জনকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে পত্তন ইউনিয়নে নির্মাণাধীন শেখ হাসিনা সড়কের পাশের জায়গায় গরুর খামার তৈরি করছিলেন এলাকার প্রভাবশালী জাকির হোসেনের সমর্থক নিলুমিয়া। এতে বাধা দেয় পত্তন ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড মেম্বার সেলিম উদ্দিনের সমর্থকেরা। এ সময় তাদের মধ্যে প্রথমে বাকবিতণ্ডা হয়।

পরে এ নিয়ে মনিপুর বাজারে সেলিম উদ্দিনের সমর্থকদের ওপর জাকির হোসেনের সমর্থকরা অতর্কিতভাবে হামলা চালায়। পরে সেলিম উদ্দিনের সমর্থকেরাও পাল্টা হা’মলা চালালে দুপক্ষের মধ্যে তুমুল সংঘ’র্ষ বাধে। প্রায় ঘণ্টা ব্যাপী চলা সংঘর্ষে উভয় পক্ষের প্রায় অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়। পরে বিজয়নগর থানাপুলিশ ঘটনার স্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

এ ব্যাপারে পত্তন ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার সেলিম উদ্দিন জানান, শেখ হাসিনা সড়কের পাশে অবৈ’ধ ভাবে গরুর খামার নির্মাণ করে মাদ’কব্যবসা করে আসছিল জাকিরের সমর্থক নিলু মিয়া ও তার লোকজন। এ ঘটনায় বাঁধা দেয়ার কারণে ক্ষি’প্ত হয়ে জাকিরের লোকজন মনিপুর বাজারে তাদের উপর হা’মলা চালিয়ে তাদেরকে আ’হত করেন।

অপর দিকে জাকির হোসেন জানান, তার পক্ষের নিলু মিয়া নিজের জমির গরুর খামার তৈরি করেছেন। বিকেলে খামারে গরু দেখতে গেলে সেলিম উদ্দিনের লোকজন উদ্দেশ্যমূলক ভাবে লিলুমিয়া ও তার লোকজনকে গরুর খামার সরিয়ে নিতে বলেন। এক পর্যায়ে তাদের উপর হাম’লা চালায়। এ নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘ’র্ষ বাঁধে।

এদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালের কত্যর্বরত চিকিৎসক ডা. আরিফুর রহমান জানান, আ’হতদের অনেকের শরীরে ক্ষত চিহ্ন রয়েছে। তবে তারা সবাই শঙ্কা’মুক্ত। তাদের সবাইকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বিজয়নগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতিকুর রহমান জানান, এ ঘটনায় ৩০ জনকে আট’ক করা হয়েছে। এ ঘটনায় আই’নানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।-সময় নিউজ।