ভারতের রাফাল, পাকিস্তানের আল-খালিদ-১

দক্ষিণ এশিয়ার আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি বাধাগ্রস্ত হচ্ছে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যকার দীর্ঘস্থায়ী কৌশলগত প্রতিদ্ব’ন্দ্বিতার কারণে। মতপার্থক্য প্রশমিত করার বদলে উভয় দেশ তাদের যু’দ্ধ সক্ষ’মতা বাড়াচ্ছে। সাম্প্রতিক সময়ে ভারতীয় বিমান বাহিনীতে রাফাল জ’ঙ্গি বিমান ও পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে আল-খালিদ-১ ট্যাঙ্ক অন্তর্ভুক্ত করার ঘটনা এই অঞ্চলের কৌশলগত পরিবেশে স্থায়ী প্রভাব ফেলবে।

ভারত ও পাকিস্তানের সামরিক ক্রয়

প্রযুক্তিগতভাবে উন্নত দেশগুলো থেকে সামরিক ক্রয় ও সামরিক সরঞ্জামের বাধাহীন দেশীয় উন্নয়ন জনগণের আর্থ-সামাজিক অগ্রগতিতে বাধার সৃষ্টি করে, বিশেষ করে ভারত ও পাকিস্তানের মতো উন্নয়নশীল দেশের জন্য। অধিকন্তু সামরিক শক্তিবৃদ্ধি আন্তঃরা’ষ্ট্রীয় সম্পর্কে নিরাপত্তা সঙ্কট সৃষ্টি করে। এর ফলে সৃষ্টি হয় অ’স্ত্র প্রতিযোগিতা।

ভারত ও পাকিস্তান ধরন ও সংখ্যার দিক থেকে তাদের পরমাণু অ’স্ত্রভা’ণ্ডার সম্প্রসারণ ও আধনিকায়ন করছে। তারা তাদের প্রচলিত সামরিক বাহিনীও শক্তিশালী করছে। গত ২৯ জুলাই ভারতীয় বিমান বাহিনীর স্কোয়াড্রন ১৭-এ অন্তর্ভুক্ত হয়েছে ৫টি রাফাল জ’ঙ্গি বিমান। রাফাল হলো উন্নত পঞ্চম প্রজন্মের বিমান। এর সর্বোচ্চ গতি ঘণ্টায় ২,২০০ কিলোমিটার। বলা হচ্ছে, ২০২১ সালে বাকি ৩১টি রাফালও পেয়ে যাবে ভারত। বর্তমানে চীনের সাথে সীমান্ত উত্তে’জনায় রয়েছে ভারত। পাকিস্তানের সাথেও তার উত্তে’জনা চলছে।

রাফাল জ’ঙ্গি বিমান

ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং ঘোষণা করেছেন যে রাফালের আগমনে ভারতের সামরিক ইতিহাসের নতুন যুগের সূচনা ঘটবে। বিপর্য’য়কর অর্থনৈতিক নীতি ও এলএসি রক্ষায় দুর্বলতার মুখে এই ঘটনাকে ক্ষমতাসীন বিজেপি নেতৃত্ব স্বস্তির কারণ হিসেবে দেখছে।

ভারতের সামরিক মতবাদ পাকিস্তানের বিরু’দ্ধে আগ্রাসী ও চীনের বিরু’দ্ধে ভয় প্রদর্শনের নীতির ওপর প্রতিষ্ঠিত। রাফাল জ’ঙ্গি বিমান ভারতের পরমাণু ও প্রচলিত উভয় ধরনের আ’ঘাত হানার সক্ষ’মতা বাড়াবে। এটি ভারতীয় ও পাকিস্তানি বিমান বাহিনীর ভারসাম্য বিন্যাসেও ভূমিকা রাখবে। পাকিস্তান বিমান বাহিনীর রয়েছে এফ-১৬ ও জেএফ-১৭ জ’ঙ্গি বিমান। এগুলো চতুর্থ প্রজন্মের যু’দ্ধবিমান।

ভারতীয় বিমান বাহিনীর শক্তি বৃদ্ধির ফলে ক্ষমতাসীন ভারতের ক্ষমতাসীন এলিটরা হয়তো পাক্সি’তানের বিরু’দ্ধে সার্জি’ক্যাল স্ট্রা’ইকের মধ্যেমে তার সামরিক উদ্দেশ্য হাসিল করতে পারবে। এ ধরনের সামরিক পদক্ষেপ উভয় দেশের জন্যই বিপ’র্যয়কর হতে পারে।

চীনের বিরু’দ্ধে ভারতের সামরিক অবস্থান

চীনের বিরু’দ্ধে ভারতের সামরিক অবস্থান গ্রহণে রাফাল জ’ঙ্গিবিমান অনেক বেশি ভূমিকা পালন করতে পারবে বলে অনেক বিশ্লেষক মনে করলেও বাস্তবে এগুলো তেমন কিছু করতে পারবে না। ভারত ইতোমধ্যেই পরমাণু সক্ষ’মতাপূর্ণ স্বল্প, মাঝারি ও আন্তঃমহাদেশীয় পাল্লার ব্যালাস্টিক ও ক্রুইজ ক্ষে’পণা’স্ত্র নির্মাণ করেছে। এগুলো স্ট্র্যা’টেজিক ফোর্সেস কমান্ডের (এসএফসি) অধীনে রাখা হয়েছে। এসব অ’স্ত্র দিয়ে এসএফসি চীন ও পাকিস্তানের মূল ভূখ’ণ্ডের টার্গেটগুলোতে হা’মলা চালাতে সক্ষ’ম।উদাহরণ হিসেবে বলা যায়, অ’গ্নি-৩ ভারতের উত্তর-পূর্ব এলাকা থেকে নিক্ষেপ করা হলে চীনের মূল ভূমিতে আ’ঘাত করতে পারবে। অ’গ্নি-৫ দিয়ে ভারত আরো ভেতর থেকে আক্র’মণ চালাতে পারবে।

রাফাল চুক্তির রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণ

সামরিক মাত্রা ছাড়াও রাফাল চুক্তির রাজনৈতিক দৃষ্টিকোণ রয়েছে। ভারতের বিরো’ধী দল কংগ্রেসসহ অনেকে অভিযোগ করছে যে ৯.৪ বিলিয়ন ডলারের ফরাসি রাফাল চুক্তিটি স্বচ্ছ নয়, ভারত অতিরিক্ত অর্থ দিচ্ছে।

পাকিস্তান-ভারত অ’স্ত্র প্রতিযোগিতা

ভারতের সাথে সামরিক ভারসাম্য রক্ষা করতে গিযে পাকিস্তান হিমশিমখাচ্ছে। ২৮ এপ্রিল পাকিস্তান সেনাবাহিনী আল-খালিদ-১ মেইন ব্যাটল ট্যাঙ্ক তার আর্মার্ড কোর রেজিমেন্টে অন্তর্ভুক্ত করে। চীন ও ইউক্রেনের সহযোগিতায় রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন হেভি ইন্ড্রাট্রিজ তক্ষিলা এটি নির্মাণ করে।

আল-খালিদ-১ মেইন ব্যাটল ট্যা’ঙ্কের বৈশিষ্ট্য

এই ট্যা’ঙ্কটির দুর্দান্ত বৈশিষ্ট্য রয়েছে। বিশেষ করে এর আক্র’মণ করার ক্ষমতা অত্যন্ত বেশি। এতে মাজল রেফারেন্স সিস্টেম, সলিড স্টেট অটোলোডার, ইমপ্রুভড রেডিয়েশন ডিটেক্টর রয়েছে। পরমাণু পরিবেশেও এটি কাজ করতে স’ক্ষম। এটি উচ্চতর কৌশলগত চলমানতা রয়েছে। নগর যু’দ্ধেও এটি সক্ষম। আল-খালিদ-১ মেইন ব্যাটল ট্যা’ঙ্ককে যু’দ্ধক্ষেত্রে রাজা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। ভারতের কোল্ড স্ট্রার্ট ডকট্রিনের মোকাবেলায় এটি অত্যন্ত কার্যকর হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

অনস্বীকার্য যে উত্তপ্ত ও জটিল আঞ্চলিক কৌশলগত পরিবেশে ভারত ও পাকিস্তানের প্রয়োজন তাদের সশ’স্ত্র বাহিনীকে আধুনিকায়ন করা। কিন্তু অ’স্ত্র প্রতিযোগিতা সবসময়ই ক্ষমতার পরিবর্তন করে, ভুল ধারণার সৃষ্টি করে। আর তা সঙ্ঘা’তময় দলগুলোকে স্থিতিশীলতার বদলে প্রতিরোধমূলক যু’দ্ধ কৌশল গ্রহণে উৎসাহিত করে।

সংক্ষেপে বলা যায়, ব্যাপক সমরসজ্জা ভারত ও পাকিস্তানের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের জন্য বিপ’জ্জনক। আর তা দক্ষিণ এশিয়ার কৌশলগত স্থিতিশীলতার জন্যও হুম’কি সৃষ্টি করে।