ডিগ্রি ১ম বর্ষের পরীক্ষায় মিন্নি ৭ বিষয়ের ৪টিতেই ফেল!

বহুল আলোচিত বরগুনার রিফাত শরীফ হ’ত্যা মা’মলার আসামি ও তার স্ত্রী আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নির ডিগ্রি প্রথম বর্ষের ফলাফল প্রকাশিত হয়েছে। বুধবার (১২ আগস্ট) সন্ধ্যা ৭টায় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে এ ফলাফল প্রকাশিত হয়। প্রকাশিত ফলাফলে মিন্নি সাত বিষয়ের মধ্যে চার বিষয়ে করেছেন ফেল! আর উত্তীর্ণ হওয়া তিন বিষয়ের মধ্যে একটিতে পেয়েছেন ডি গ্রেট আর বাকি দু’টিতে সি গ্রেড। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সদ্য ঘোষিত ডিগ্রি প্রথম বর্ষের ফলাফলে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

ফলাফল ঘেঁটে আরও জানা গেছে, স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ইতিহাস বিষয়ে মিন্নি পেয়েছেন ডি গ্রেড। রাষ্ট্রবিজ্ঞান প্রথম পত্রে পেয়েছেন সি গ্রেড। রাষ্ট্রবিজ্ঞান দ্বিতীয় পত্রে করেছেন ফেল। ইসলামের ইতিহাস প্রথম পত্রে পেয়েছেন সি গ্রেড। ইসলামের ইতিহাস দ্বিতীয় পত্রে করেছেন ফেল। এছাড়াও অর্থনীতি প্রথম এবং দ্বিতীয় পত্রের দু’টিতে ফেল করেছেন।

জানা গেছে, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ডিগ্রি ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মিন্নি। ২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত ডিগ্রি প্রথম বর্ষের পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন তিনি। ২০১৯ সালের শেষ দিকে এ পরীক্ষা শুরু হওয়ার পর শেষ হয় ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে। বরগুনা সরকারি কলেজ থেকে ব্যাচেলর অব সোস্যাল সাইন্স (বিএসএস) গ্রুপ থেকে এ পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন মিন্নি। বরগুনা সরকারি মহিলা কলেজ কেন্দ্রে মিন্নি ডিগ্রি প্রথম বর্ষের পরীক্ষায় অংশ নেন।

দেশব্যাপী করোনা ভাই’রাসের সংক্র’মণ ছড়িয়ে পড়ায় আ’দালত বন্ধ হওয়ার আগে মিন্নির ডিগ্রি প্রথম বর্ষের পরীক্ষা শেষ হয়। এক দিকে রিফাত হ’ত্যা মা’মলার বিচার কাজ, অন্য দিকে পরীক্ষা চলায় মাম’লার কার্যদিবসেও আদা’লতের অনুমতি নিয়ে আদা’লতে না থেকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেন মিন্নি। এ বিষয়ে মিন্নির বাবা মো. মোজাম্মেল হোসেনে কিশোর বলেন, মিন্নি ওর কা’ঙ্ক্ষিত ফলাফল করতে পারেনি। আসলে ওর যে অবস্থা তাতে কা’ঙ্ক্ষিত ফলাফল অর্জন করা সম্ভবও নয়।

তিনি আরো বলেন, পরীক্ষার পূর্ব প্রস্তুতি মিন্নি যথাযথভাবে নিতে পারেননি। যে সময়ে ওর পরীক্ষার প্রস্তুতি নেওয়ার কথা, সেই সময়ে ৪৯ দিন ছিল কারা’গারে। তাছাড়া স্বামীকে হারিয়েও মিন্নি মানসিকভাবে খুবই বিপ’র্যস্ত ছিল। তাছাড়া নিয়মিত কো’র্টে হাজিরাতো ছিলই। এসব কারণে ওর পরীক্ষার ফলাফল ভালো হয়নি। তারপরও মিন্নি দ্বিতীয় বর্ষে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পাবে এবং প্রথম বর্ষের খারাপ হওয়া পরীক্ষাগুলোর ইম্প্রুভমেন্ট দিতে পারবে।

সূত্র: বাংলা নিউজ