চিরকুট লিখে বিদ্যুতের মিটার চুরি

অভিনব কায়দায় চিরকুটে মোবাইল নম্বর লিখে রেখে নাটোরের সিংড়ায় বৈদ্যুতিক মিটার চুরি করছে দুর্বৃ’ত্তরা। এসব ঘটনায় উপজেলার গ্রাহকদের মাঝে নতুন করে দেখা দিয়েছে আত’ঙ্ক। এলাকাবাসী ও বৈদ্যুতিক গ্রাহক সূত্রে জানা যায়, গত বছরের ন্যায় রোববার রাতে উপজেলার জামতলী বাজার এলাকার তিনটি ‘স’ মিলের বৈদ্যুতিক মিটার চুরি করে নিয়ে যায় দুর্বৃ’ত্তরা। নিচে সিগারেট প্যাকেট এর কাগজের চিরকুটে ০১৩১৩৫৪০২৯৪ মোবাইল নম্বর লিখে রেখে যায়।

সকালে মিটার চুরি যাওয়া স্থান থেকে প্রাপ্ত মোবাইল নম্বরে যোগাযোগ করা হলে প্রতিটি মিটার ছয় হাজার টাকা বিকাশ করলে চুরির মিটার ফেরত দেয়া হবে বলে জানায় দু’র্বৃত্তরা।চুরি যাওয়া মেসার্স পলাশ ‘স’ মিলের স্বত্তাধিকারী শ্রী পলাশ সূত্রধর বলেন, তাদের চুরি যাওয়া তিনটি বৈদ্যুতিক মিটারের মূল্য প্রায় লক্ষাধিক টাকা। আর তিনটি মিলে প্রতিদিন ২০ থেকে ২৫জন শ্রমিক কাজ করে। হঠাৎ মিটার চুরি হওয়ায় মিল বন্ধ রয়েছে। তাই শ্রমিকদের বসে থাকতে হচ্ছে। এখন হয় চোরের চাহিদা মতো বিকাশ নম্বরে টাকা দিয়ে মিটার ফেরত নিতে হবে নয়তো পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে মিটারের সমপরিমান টাকা জমা দিয়ে নতুন মিটার নিতে হবে।

বৃষ্টি-বরষা ‘স’ মিলের স্বত্তাধিকারী আব্দুল বারী ডাবলু বলেন, গত বছরেও একই অভিনব কায়দায় তার মিলের মিটার চুরি হয়েছিল। পরে অনেক দৌড়া দৈড়ি করে পাশের আজাদ দরগা নামক একটি জায়গার জঙ্গল থেকে চুরি যাওয়া মিটার ফেরত পেয়েছিল। সে সময় ৭দিন তার মিল বন্ধ ছিল। আবার নতুন করে বিপদ। আর অভিযোগ করে লাভ কি? তাতে হয়রানি আরো বাড়ে।

চিরকুটে লেখা ০১৩১৩৫৪০২৯৪ মোবাইল নম্বরে ফোন করা হলে পাশবতী থানা নন্দীগ্রাম এলাকার ভাষায় এক জনৈক ব্যক্তি বলেন, মিটার দিবার তো চালামই। আমরা ৫টা লোক গেছি, পেটের দায়ে করছি। টাকা দিবেন, আমার লোক দিয়ে মিটার পাঠায় দিমু। আল্লাহ তো আপনো গো অনেক দিছে ভাই।

নাটোর পল্লী সমিতি-১ সিংড়া জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার রেজাউল করিম বলেন, মিটার চু’রির বিষয়টি শুনেছি। অভিযোগ পেলে আই’নগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। গত বছরেও এভাবে ১০টি মিটার চুরি হয়েছিল। চোরও আটক হয়েছিল। আবার নতুন করে একই ঘটনা। এটা খুবই দুঃখ জনক।-নিউজ টোয়েন্টিফোর