এখন ১০ বলের মধ্যে ৮ ইয়র্কার মারতে পারি : মুস্তাফিজ

বাংলাদেশ জাতীয় দলের অপরিহার্য খেলোয়াড় মোস্তাফিজ। ভারতের বিপক্ষে ওয়ানডে অভিষেকে সব আলো কেড়ে নিয়েছিলেন বাঁ-হাতি এই পেসার। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পাঁচ বছর পূর্ণ করেছেন। একটা সময় ছিল যখন তিন ফরম্যাটেই সমান বিচরণ করতেন মোস্তাফিজ। এখন ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে নিয়মিত মুখ।

এই পেসার সব শেষ টেস্ট খেলেছেন গত বছরের মার্চে নিউজিল্যান্ড সফরে। মোস্তাফিজের তিন ফরম্যাটই পছন্দ। ওয়ানডে, টি-টোয়েন্টির মতো টেস্ট দলেও নিয়মিত হতে চান তিনি। মোস্তাফিজ বলেছেন, ‘বড় ক্রিকেটার হতে গেলে টেস্ট খেলতে হবে। এই ফরম্যাটে একজন ক্রিকেটার তার স্কিল প্রদর্শন করার সুযোগ পায়।

আর ক্রিকেটের শেখরই তো টেস্ট। একজন বোলারের জন্য ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টিতে যে সুযোগ থাকে না টেস্টে তা থাকে। এখানে এক সেশন খারাপ করলে পরের সেশনে তা পুষিয়ে নেওয়ার সুযোগ থাকে। আমি সব সময় লংগার ভার্সনে খেলতে ভালোবাসি।’

বাঁ কাঁধের অ’স্ত্রোপ’চারের পর থেকে কিছুটা ছন্দ হারিয়ে ফেলেছিলেন মোস্তাফিজ। তবে সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে নিজেকে অনেকটাই ফিরে পেয়েছেন। বল হাতে আবারও আলো ছড়াচ্ছেন। বাঁ-হাতি এই পেসার জানিয়েছেন, হারানো ছন্দ ফিরে পেতে অক্লা’ন্ত পরিশ্রম করেছেন তিনি।

মোস্তাফিজের ভাড়ারে রয়েছে কাটার, স্লো’য়ার, ইয়র্কার। কাটার তার সেরা অ’স্ত্র। আইপিএলে খেলার সুবাদে লাসিথ মা’লিঙ্গার কাছ থেকে ইয়র্কারটা আরও ভালোভাবে শিখে নিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘মালিঙ্গার কাছ থেকে পরামর্শ নিয়েছি। আগে যদি ১০টা বলের মধ্যে ৫টা ইয়র্কার মা’রতে পারতাম এখন ৮টা পারি।

মোস্তাফিজ এটাও জানিয়েছেন যে, তার বোলিং ভাড়ারে আপাতত নতুন আর কোনো অ’স্ত্র যোগ হচ্ছে না। বরং পুরনো অ’স্ত্রগু’লো শানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছেন। মাঠে ফেরার অপেক্ষায় কাটার মাস্টার। সতীর্থ, ড্রেসিংরুম মিস করছেন তিনি।

জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়ার পর এবারই প্রথম দীর্ঘসময় ক্রিকেটের বাইরে আছেন। মোস্তাফিজ বলেছেন, ইনজু’রির কারণে ক্রিকেটের বাইরে ছিলাম। তবে এবারের প্রেক্ষাপট তো ভিন্ন। ক্রিকেটই বন্ধ। সবাইকে খুব মিস করি। আশা করি, সবাই আবার মাঠে ফিরতে পারব।