‘অবৈ’ধভাবে রাস্তার উপর মসজিদ নির্মাণকারীদের শা’স্তি হওয়া প্রয়োজন’

নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বি’স্ফো’রণের পরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন বিদ্যুৎ জ্বা’লানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু। শনিবার ঘটনাস্থল পরিদর্শনের পর নসরুল হামিদ বলেন, মসজিদের একটি অংশ বর্ধিত করে রাস্তার উপরে নিয়ে আসা হয়েছে। তবে রাস্তার উপর মসজিদের বর্ধিত অংশ কিভাবে নির্মাণ করা হলো এবং রাস্তার মধ্যে গ্যাস লাইনের পাইপ আছে কি না সেটাই প্রশ্ন।

তিনি বলেন, রাস্তা পরিষ্কার করে দেখা হবে এখানে গ্যাস লাইনের সংযোগ আছে কিনা। তারপরেই এ বিষয়ে পরিষ্কার হওয়া যাবে এবং গ্যাস লাইনের উপরে কিভাবে মসজিদ নির্মাণ করা হলো সেটাও বোঝা যাবে। তিনি বলেন, যারা অবৈ’ধভাবে রাস্তার জায়গার উপর মসজিদ নির্মাণ করেছে তাদের শা’স্তি হওয়া প্রয়োজন। একইসাথে যেসব গ্রাহক অবৈ’ধভাবে গ্যাস লাইনের সংযোগ গ্রহণ করেছেন তাদেরও শা’স্তি হওয়া প্রয়োজন।

আর তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষের কারণে এ ঘটনা ঘটে থাকলে দ্রুত সময়ের মধ্যে তাদের সাময়িক বরখা’স্ত করে তাদের বিরু’দ্ধে আই’নগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি। তবে ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল রিভিশন এর মহাপরিচালক মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন বলেন, গ্যাসের লিস্ট থেকে স্পার্ক (স্ফুলিঙ্গ) করে বি’স্ফো’রণ ঘটেছে। এরইমধ্যে ফায়ার সার্ভিসের মেশিন দিয়ে মসজিদের ভেতরে ১৭ ভাগ গ্যাসের উদগীরণের চিহ্ন পরিলক্ষিত হয়েছে।

ধারণা করা হচ্ছে মসজিদের ভেতরে গ্যাস উদগীরণ এর কারণেই বৈদ্যু’তিক শর্ট সার্কিট বা অন্য কোনো স্পার্ক থেকে আ’গুন লেগে এই বি’স্ফো’রণের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার রাতে নারায়ণগঞ্জ সদরের পশ্চিম তল্লা বাইতুস সালাম জামে মসজিদের এসি বি’স্ফো’রণ হয়ে ৩৭ জন দ’গ্ধ মুসুল্লি জাতীয় শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লা’স্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি হন।

গতরাত থেকে এ পর্যন্ত ২০ জন মৃ’ত্যুবরণ করেছেন। বিকেলে ১৬ জনের ম’রদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। অন্যদের জরুরি বিভাগে চি’কিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

সূত্র: যমুনা নিউজ।