‘দ’গ্ধদের সবার শ্বা’সনালি পুড়ে গেছে, কারো অবস্থা ভালো না’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছেন, নারায়ণগঞ্জে মসজিদে এসি বি’স্ফো’রণে চি’কিৎসাধীন কারো অবস্থাই ভালো না। সবার শ্বা’সনালি পু’ড়ে গেছে। আজ রবিবার শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লা’স্টিক সা’র্জারি ইনস্টিটিউটে নারায়ণগঞ্জে মসজিদে বি’স্ফো’রণে দ’গ্ধ ব্যক্তিদের দেখতে এসে স্বা’স্থ্যমন্ত্রী এ তথ্য জানান।

স্বা’স্থ্যমন্ত্রী বলেন, বি’স্ফো’রণে দ’গ্ধ ৩৭ জন বার্ন অ্যান্ড প্লা’স্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি হন। তাদের মধ্যে ২৪ জন মা’রা গেছেন। প্রত্যেকেরই ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ পোড়া। এখন যে ১৩ জন চি’কিৎসাধীন, তাদের কারো অবস্থাই ভালো না। সবার শ্বা’সনালি পোড়া। পাঁচ থেকে ছয়জনের অবস্থা আশ’ঙ্কাজনক।

চি’কিৎসাধীন ১৩ জন হলেন- ইমরান (৩০), মামুন (২৩), আমজাদ (৩৭), আ. সাত্তার (৪০), হান্নান (৫০), আ. আজিজ (৪০), রিফাত (১৮), নজরুল ইসলাম (৫০), মো. কেনান (২৪), আবুল বাসার মোল্লা (৫১), মনির ফরাজী (৩০), শেখ ফরিদ (২১) ও মো. ফরিদ (৫৫)। তাদের মধ্যে ফরিদ, মনির ফরাজী, কেনান, আজিজ, আমজাদ ও আবুল বাশারকে আইসিইউতে রাখা হয়েছে।

জাহিদ মালেক বলেন, এই ঘটনায় অবহেলাজনিত কারণ দেখিয়ে মা’মলা হয়েছে। তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে। কারো সংশ্লিষ্টতা থাকলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দেশের সব হাসপা’তালেই বার্ন ইউনিট করার পরিকল্পনা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার (৪ সেপ্টেম্বর) রাত সাড়ে ৮টার দিকে নারায়ণগঞ্জ শহরের পশ্চিম তল্লা এলাকার বায়তুস সালাত জামে মসজিদে বি’স্ফো’রণে দ’গ্ধ হন ৩৭ জন মুসল্লি। তাদের মধ্য থেকে এখন পর্যন্ত ২৪ জন মা’রা গেছেন। বাকি ১৩ জনের অবস্থাও আশ’ঙ্কাজনক।

সূত্র: কালের কণ্ঠ অনলাইন।