মুস্তাফিজকে ঘিরেই পেস বোলিংয়ে আশা

করোনাভাই’রাস ছোবল দিয়েছে বাংলাদেশ শিবিরে। কোনো ধরনের উপসর্গ না থাকার পরও করোনা পজিটিভ হয়েছেন জাতীয় দলের ওপেনার সাইফ হাসান ও ট্রেনার নিকোলাস লি বা নিক লি। ১৪ আগস্ট দুবাইয়ে প্রথমবার করোনা টেস্ট করেছিলেন তিনি। পজিটিভ হয়েছিলেন সেবার। এরপর আইসোলেশনে চলে যান। ১০ দিন পর ২৩ আগস্ট দ্বিতীয়বার পরীক্ষা করেন। ফল আসে নেগেটিভ। তারপরও ঢাকায় আসার আগে মরু শহরে দুই সপ্তাহ আইসোলেশনে ছিলেন তিনি। এরপর পুরোপুরি সুস্থ হয়ে নিক লি ঢাকায় পা রাখেন সোমবার মধ্যরাতে।

জাতীয় দলের ১৭ ক্রিকেটারের সঙ্গে পুনরায় কভিড-১৯ পরীক্ষা করেন। গতকাল জানা গেছে টাইগার ওপেনার সাইফের সঙ্গে তিনিও পজিটিভ। বিসিবি সিইও নিজামুদ্দিন চৌধুরী সুজন দুজনের করোনা পজিটিভের বিষয়টি স্বীকার করেন, ‘সাইফ ও নিক লির করোনা পজিটিভ। এখন থেকে তারা সেলফ আইসোলেশনে থাকবেন। তিন দিন পর পুনরায় তাদের পরীক্ষা করা হবে। যদি নেগেটিভ হন দুজনে, তাহলে অনুশীলনে যোগ দিতে পারবেন।’

করোনাভাই’রাসের জন্য পাঁচ দিন বন্ধ ছিল ক্রিকেটারদের অনুশীলন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে, নিরাপদ দূরত্ব রেখে এবং ভিন্ন ভিন্ন সময়ে আজ ফের অনুশীলন শুরু করবেন ক্রিকেটাররা। দীর্ঘ আট মাস পর সিরিজ খেলতে নেমে শ্রীলঙ্কাকে ভড়কে দিতে ৭ পেসার নিয়ে ঢাকা ছাড়বে বাংলাদেশ। ‘কাটার মাস্টার’ মুস্তাফিজুর রহমানকে মূল অস্ত্র ধরেই তিন পেসার দিয়ে একাদশ সাজানোর পরিকল্পনা করেছে টিম ম্যানেজমেন্ট।

তিন টেস্ট সিরিজ খেলতে টাইগাররা ঢাকা ছাড়বেন ২৭ সেপ্টেম্বর। তার আগে আরও তিনবার করোনা পরীক্ষা করানো হবে ক্রিকেটারদের। ১৮ সেপ্টেম্বর দ্বিতীয়বার পরীক্ষা করানোর পর নেগেটিভ ক্রিকেটারদের সোনারগাঁও হোটেলে ওঠানো হবে। ২০ সেপ্টেম্বর তৃতীয়বার পরীক্ষা করা হবে। সর্বশেষ পরীক্ষা করা হবে ২৭ সেপ্টেম্বর ঢাকা ছাড়ার আগে। এর আগে বিসিবির পরিকল্পনা ছিল ১৮ সেপ্টেম্বর করোনা পরীক্ষা করানোর। কিন্তু পরিকল্পনায় বদল এনে আগেই করানোর ব্যাখ্যায় সিইও বলেন, ‘আগে করানোর কারণ হচ্ছে, যদি কোনো ক্রিকেটারের করোনা পজিটিভ হয়, তাহলে সুস্থ হতে এখন সে সময় পাবে। কিন্তু শেষ মুহূর্তে পরীক্ষা করে পজিটিভ হলে সেটা হতো আত্মঘাতী। এমন বিবেচনায় আমরা আগে পরীক্ষা করিয়েছি।’

মুস্তাফিজের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার পাঁচ বছরের। এই সময়ে ৫৮ ওয়ানডে ও ৪১ টি-টোয়েন্টি খেললেও টেস্ট খেলেছেন মাত্র ১৩টি। সর্বশেষটি আবার গত বছরের মার্চে। গত ১৮ মাসে বাংলাদেশ আফগনিস্তান, ভারত, জিম্বাবুয়ে, পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট খেলেছে। কিন্তু মুস্তাফিজের খেলা হয়নি। এবার শ্রীলঙ্কা সফরের পেস অ্যাটাকের মূল অ’স্ত্র হিসেবে টিম ম্যানেজমেন্ট ভাবছে মুস্তাফিজকে।

নির্বাচক হাবিবুল বাশার সুমন তেমনই জানিয়েছেন, ‘অনেক দিন ধরে ক্রিকেট খেলছেন না ক্রিকেটাররা। তাই ফিটনেস নিয়ে কোনো সমস্যা থাকার কথা নয়। এমন ভাবনায় আমরা টেস্টে মুস্তাফিজকে চিন্তাভাবনা করছি। এটা সত্যি যে, দেশের সেরা পেসার মুস্তাফিজ। সিরিজে আমরা তাকে ঘিরেই পেস বিভাগ সাজানোর পরিকল্পনা করেছি।’ ইন’জুরি প্রবণতার জন্য একমাত্র মুস্তাফিজকে শুধু সাদা বলে ও রঙিন পোশাকে খেলানোর কথা ভেবেছিল টিম ম্যানেজমেন্ট।

সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন