ফাইনালে উঠল সিপিএলের ২ শক্তিশালী দল

সেমিফাইনালে অসম লড়াইয়ে ফাইনালের ছাড়পত্র পেয়ে গেল কিং খানের দল৷ মঙ্গলবার জামাইকা তালাওয়াহাকে ৯ উইকেটে হারিয়ে ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (সিপিএল) ফাইনালে উঠল ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স৷ প্রথম প্রতিপক্ষকে অল্প রানে বেঁধে রেখে মাত্র এক উইকেট হারিয়ে জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে যায় নাইট রাইডার্স৷ ১০৮ রান তাড়া করতে নেমে লিন্ডল সিমন্স এবং টিওন ওয়েবস্টার ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্সের হয়ে দ্বিতীয় উইকেটে ৯৭ রানের জুটি গড়ে দলকে জয়ের লক্ষ্যে পৌঁছে দেন৷

সিমন্স ও ওয়েবস্টার যথাক্রমে ৫৪ এবং ৪৪ রানে অপরাজিত থাকেন৷ ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স ৩০ বল বাকি থাকতেই ন’ উইকেটে ম্যাচ জিতে ফাইনালে পৌঁছে যায়৷ এর আগে, দুরন্ত বোলিং পারফরম্যান্স জামাইকা তালাওয়াহাকে নির্ধারিত 20 ওভারে মাত্র ১০৭ রানে বেঁধে রাখে নাইট রাইডার্স৷ প্রথমে ব্যাট করতে নেমে জামাইকা তালাওয়াহরা প্রথম পাঁচ ওভারের মধ্যে ৪ উইকেটে মাত্র ২৪ রান তোলে৷ জারমাইন ব্ল্যাকউড (০), গ্লেন ফিলিপস (২), মুজিব উর রহমান (০), এবং আসিফ আলি (৪) সবকটি উইকেট হারিয়ে সমস্যায় পড়ে তালাওয়াহরা৷

আইপিএলে নাইটদের বিগ-হিট ব্যাটসম্যান আন্দ্রে রাসেল এদিন মাত্র ২ করে ডাগ-আউটে ফেরেন৷ ইনিংসের ১৪তম ওভারে দুর্ভাগ্যজনকভাবে আউট হন রাসেল৷ সুনীল নারিনের বোলিংয়ে অন-ফিল্ড আম্পায়ার তাঁকে ধাক্কা দিয়েছিলেন৷ ফলস্বরূপ তাঁকে প্যাভিলিয়নে ফেরত পাঠানো হয়েছিল। তারপর ফিরে স্লিপে ক্যাচ-আউট হন রাসেল৷ কিন্তু রিপ্লে-তে স্পষ্ট বোঝা গিয়েছিল যে বলটি সরাসরি প্যাড থেকে এসেছিল।

শেষ ওভারে ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স শক্ত রেখা ও দৈর্ঘ্য বজায় রাখতে সক্ষম হয়৷ ফলস্বরূপ তালওয়াহরা ১০৭ রানের বেশি তুলতে পারেনি৷ রান তাড়া করে মাত্র এক উইকেট হারিয়ে ফাইনালের ছাড়পত্র জোগাড় করে নেয় নাইট রাইডার্স৷ এর আগে লিগের সব ক’টি ম্যাচ জিতে রেকর্ড গড়েছিল কিং খানের দল৷

সংক্ষিপ্ত স্কোর: ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স ১১১/১ (লেন্ডেল সিমন্স ৫৪ *, টিওন ওয়েবস্টার ৪৪ *, মুজিব উর রহমান ১-১৮) জামাইকা তালাওয়াহাস ১০৭/৭ (এনক্রুমাহ বোনার ৪১, রোভম্যান পাওয়েল ৩৩, আকেল হোসেইন ৩-১৪)